ওজন কমাতে বাজারে আসছে নতুন পিল জাতীয় ডিভাইস

ওজন কমাতে বাজারে আসছে নতুন পিল জাতীয় ডিভাইস

মানুষের জীবনে দৈনন্দিন সমস্যার সাথে সাথে নতুন যে স্বাস্থ্য সমস্যার সম্মুখীন হতে হচ্ছে সেটি হচ্ছে অতিরিক্ত ওজন জাতীয় সমস্যা। ওজন কমানোর জন্য সারাদেশের মানসিক কোনো না কোনো ব্যবস্থা করছে। এবং হাজার হাজার টাকা ব্যয় করছে ওজন কমানোর জন্য কিন্তু কিছু কিছু সময় সেটাই কোন লাভ হচ্ছে না।
বিজ্ঞানীরা ও চেষ্টা করে যাচ্ছেন কিভাবে সহজে এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হীন ভাবে ওজন কমানোর ব্যবস্থা করা যায় এবং ওজন কমানোর নতুন ওষুধ আবিষ্কার করা যায়। আর এই আবিষ্কারের এই অংশ হিসেবে মার্কিন প্রতিষ্ঠানগুলো এক ধরনের পিলের আবিষ্কার করেছে। এই তিনটি সাধারণ তেলের মতই পানির সাহায্যে এটা খেতে হবে।
এবং এটি গ্রহণ করতে হবে প্রত্যেক বেলা খাবারের আগে।
এই ক্যাপসুলটি তৈরি করেছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ম্যাচ টু সেট ইন্সটিটিউশন অফ টেকনোলজি মাল্টিভিটামিন আকারের এই ক্যাপসুলটি তৈরি করেছে। শিল্পী পাকস্থলীতে গেলে এক ধরনের সহনীয় কম্পন সৃষ্টি করে এবং সেখান থেকে ব্যাংকের সংকেত দেয় তার পাকস্থলী ভরে গেছে। এবং রোগী যখন এ ধরনের সংকেত পায় তখন তিনি আর খাবার গ্রহণ করতে পারেন না। এর ফলে তার মনে হবে তার পেট ভরে গেছে। এই রিপোর্টটি প্রকাশ করেছে ডেইলি মেল অনলাইন। এবং এটি প্রকাশ করা হয় গত বছরের ডিসেম্বর মাসে। শুকরের দেহের সাথে মানুষের কিছুটা মিল রয়েছে। পরীক্ষার জন্য শুকরের পেটে খাওয়ার এ ২০ মিনিট আগে আমাদের ক্যাপসুল ভরে দেয়া হলেও শুকর গুলো চল্লিশ শতাংশ খাবার কম খায়। এবং এই তথ্যটি জানিয়েছেন বৈজ্ঞানিকরা। এটাকে যদি অতিল বলা হয় তবু এটা এক ধরনের ডিভাইস। তবে তথ্যসূত্রে জানা যায় যে এই ডিভাইসটি এখনো পরীক্ষা করা হয়নি মানুষের মধ্যে। গবেষকরা জানিয়েছেন এই তিলটি ব্যবহার করা যাবে মানুষের ওজন কমাতে। এবং এটার মধ্যে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও কম এটাই বমি বমি ভাব হয় না এবং এটার মধ্যে বমি হওয়ার প্রবণতাও কম। এবং ডায়াবেটিস কমানোর জন্যও এরকম ধরনের আরেকটি ডিভাইস আবিষ্কার করা হয়েছিল। সেটাও কাজে দিয়েছে। উক্ত ডিভাইস খেয়ে খোদা ওজন কমানোর জন্য ব্যবহৃত হবে।
বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন যারা প্রতিমুহূর্তে প্রতিবেলা খাবারের আগে ওজন কমাতে চান তাদের জন্য এই ব্যবহারকিত প্রীতি এবং ডিভাইসটি খুবই কাজে দেবে। এবং ভবিষ্যতে যদি এই ডিবাসটি আধুনিকায়ন হয় তাহলে এটি স্থায়ীভাবে পাকস্থলীতে থাকবে এবং এটা ব্যাটারির সাহায্যে ও বাইরে থেকে চালানো যাবে একবার গিলে ফেলতে পারলে ডিভাইসটি তার কাজ শুরু করবে এবং পাকস্থলীতে গিয়ে কম্পন শুরু করবে ব্যাংকে সংকেত পাঠাতে সাহায্য করবে এবং তার ক্ষুধা মিটে গেছে তার খাবার লাগবে না এমন ধরনের সংকেত পাঠাবে।
তখন ব্যবহারকারী খুব পরিমিত খাবার খাবেন এবং যতটুকু প্রয়োজন ততটুকুই তিনি খাবার খাবেন। প্রয়োজনের অতিরিক্ত খাবার খাওয়া থেকে এই ডিভাইসটিই বিরত রাখবে। এবং শরীরের বাড়তি চর্বি কমিয়ে দৈহিক ওজন ঠিক রাখতে সাহায্য করবে ফিট রাখতে সাহায্য করবে এই ডিভাইসটি।

শিক্ষা প্রযুক্তি দেশ-বিদেশের নানান খবর জানতে যুক্ত হন কলেজ টু ইউনিভার্সিটির পেজে এবং ওয়েবসাইটে।

Leave a Comment