ইন্টারভিউর এমন কিছু প্রশ্ন যা জানা থাকলে আপনার জব নিশ্চিত।

। আজকের এই আর্টিকেলে ইন্টারভিউ র গুরুত্বপূর্ণ কিছু প্রশ্ন সম্পর্কে আলোচনা করব আসসালামু আলাইকুম স্বাগতম আমাদের ওয়েবসাইটে আমাদের মধ্যে অনেকেই লেখাপড়া শেষ করে চাকরি করতে চাই। আর এই চাকরিতে প্রবেশের জন্য প্রথমে আপনাকে ভাইবা বা ইন্টারভিউ বোর্ডের সম্মুখীন হতে হবে।

আর এই ভাইবা বোর্ডের আয়োজন করা হয় চাকুরী প্রার্থীদের জন্য কেননা আপনি যে পোষ্টের বিপরীতে আবেদন করেছেন সেই পোষ্টের জন্য সঠিক এবং দক্ষ লোক নিয়োগ দেয় হচ্ছে সেই ভাইবা বোর্ডের মূল লক্ষ্য। আর এই ইন্টারভিউ বোর্ড বা ভাইভা বোর্ডের জন্য আপনি যদি একটু মানসিক প্রিপারেশন নিয়ে যান তাহলে চাকরি পাওয়ার সম্ভাবনা আপনার অনেক বেড়ে যাবে তাই আজকে আমরা আমাদের এই আর্টিকেলে আটটি কমন প্রশ্ন সম্পর্কে জানব যেটা জানা থাকলে আপনাদের চাকরি পাওয়া অনেকটাই সহজ হবে।

এবং আমরা আমাদের আর্টিকেলে এমন কিছু প্রশ্ন সম্পর্কে আপনাদের সাথে আলোচনা করব যেগুলো ভাইভাতে প্রায় সময় থাকে। তাই ভাইবা বিষয়ক কমন কিছু প্রশ্ন নিয়ে আজকে আমরা আলোচনা করতে চলেছি যাতে আপনারা মানসিক প্রিপারেশন নিতে পারেন।

১. আপনার নিজের সম্পর্কে বলুন ? প্রথমেই আপনাকে প্রশ্ন করা হবে আপনার নিজের সম্পর্কে এই প্রশ্নের উত্তরে আপনি প্রথমে আপনার নাম ঠিকানা খুব সংক্ষেপে এডুকেশন কোয়ালিফিকেশন বলবেন যদি আপনার এক্সপেরিয়েন্স থেকে থাকে তাহলে সেটা বলবেন কোথায় জব করেন পোস্ট কি? কাজ কি? এবং সর্বশেষে ফ্যামিলি ব্যাকগ্রাউন্ড মা-বাবা কি করে? কয় ভাই বোন? ইত্যাদি সম্পর্কে সংক্ষেপে বলবেন।

২. আপনি কেন আমাদের কোম্পানিতে জব করতে চান? ভাইবা বোর্ডের দ্বিতীয় প্রশ্ন হবে আপনি কেন আমাদের কোম্পানিতে জব করতে চান এই প্রশ্নটি প্রায় সকল ভাইবা বোর্ডেই জিজ্ঞাসা করে থাকে এই প্রশ্নের উত্তরে আপনি পজিটিভ ভাবে উত্তর দিবেন এবং সেই কোম্পানির প্রশংসা করবেন। আরো বলবেন যে এই কোম্পানিতে আমার কোয়ালিফিকেশন এবং স্কিল জবের সঙ্গে ম্যাচ করে এই কারণে আপনার কোম্পানিতে কাজ করার সুযোগ হলে আমি আমার সর্বোচ্চ মেধা ও শ্রম দিয়ে কাজ করার চেষ্টা করব।

৩. আপনার দক্ষতা গুলো কি কি ? এই প্রশ্নের উত্তরে আপনার নিজের যে গুণাবলী আছে তা সুন্দরভাবে উপস্থাপন করবেন আপনি এভাবে বলতে পারেন আপনার সবচেয়ে বড় গুণ হচ্ছে আমি যে কোন পরিবেশে নিজেকে মানিয়ে নিতে পারি আমি সততার সঙ্গে সবসময় কাজকর্ম করে এবং সৎ কাজে পজিটিভ থাকি

৪. আপনার দুর্বলতা গুলো কি কি ? এই প্রশ্নের উত্তর আপনাকে কিছুটা চালাকির সঙ্গে দিতে হবে এখানে আপনাকে নিজের দুর্বলতা গুলো এমন ভাবে উপস্থাপন করতে হবে যেন সেটা পজিটিভ হয় এখানে আপনি বলতে পারেন আমি সব কাজ নিখুঁতভাবে করতে চাই তাই একটু খুঁতখুতে স্বভাবে এবং আমি সোজা সাপটা কথা বলতে পছন্দ করি তাই অনেকেই আমাকে অপছন্দ করে। ৫. আপনাকে কেন আমরা নিয়োগ দিব ? এই প্রশ্নের উত্তর আপনাকে আপনার ট্যালেন্ট এবং স্কিল যা যা রয়েছে তা সুন্দর করে গুছিয়ে বলতে হবে । যদি আপনার পূর্বের কোন কাজের অভিজ্ঞতা থাকে সেটি বিস্তারিত উপস্থাপন করতে হবে।

৬. আমাদের কোম্পানির সম্পর্কে আপনি কি জানেন? এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন কেননা আপনি যে কোম্পানিতে কাজ করতে চান অবশ্যই আগে থেকে সেই কোম্পানির সম্পর্কে আপনার ধারণা থাকতে হবে এতে করে আপনি ইন্টারভিউ বোর্ডকে বোঝাতে পারবেন যে আপনি কতটা ইচ্ছুক তাদের কোম্পানিতে কাজ করার জন্য তারা অনেক খুশি হবে সেই প্রতিষ্ঠানের ওয়ার্ক ইনভাইরনমেন্ট সকল কিছু সম্পর্কে ইন্টারনেট থেকে খুব সহজেই জেনে নিতে পারবেন এবং সেখানে বলতে পারবেন।

৭. আপনি কেন জব চেঞ্জ করতে চান? এই প্রশ্নের উত্তরে আপনি কখনোই বর্তমান যে কোম্পানিতে কাজ করেন তার বদনাম করবেন না এখানে আপনি বলতে পারেন আমি নতুন ভালো কোন অপরচুনিটি খুঁজছি এবং আমার নতুন নতুন কিছু শেখা হবি।

৮. আপনি কেমন বেতন আশা করেন? এই প্রশ্নের সবথেকে বেস্ট উত্তর হচ্ছে আপনি যদি নতুন হন তাহলে কোন অংক না বলা। আপনি এভাবে বলতে পারেন যে কোম্পানির নিয়ম অনুযায়ী আমার যা প্রাপ্য তাতে আমি খুশি। আর যদি আপনি বর্তমানের জব করে থাকেন তাহলে বর্তমান যে বেতন ও সুযোগ-সুবিধা পান সেটি বলবেন। সাধারণত ভাইভাতে এই সকল প্রশ্ন খুব বেশি পরিমাণে করা হয়ে থাকে এর বাইরে আপনি যে চাকরি করতে চান সেই চাকরি সম্পর্কিত প্রশ্ন করা হবে। তাই সেই বিষয়ে ভালো করে স্টাডি করবেন এবং ভাইবা বোর্ডের প্রশ্নগুলো সঠিকভাবে দেয়ার চেষ্টা করবেন আশা করছি এই আর্টিকেলটি আপনার ভালো লেগেছে। এবং আপনাদের অনেক উপকারে আসবে ধন্যবাদ মনোযোগ সহকারে আমাদের আর্টিকেলটি পড়ার জন্য। আমাদের ওয়েবসাইটে সাথেই থাকুন ।

Leave a Comment