বিখ্যাত মনিষীদের বাণী।মনিষীদের বাণী  সমগ্র

কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর আমাদের বিশ্ব কবি। তিনি আমাদের জন্য অসাধারণ অনেক দিকনির্দেশনা এবং বাণী রেখে গেছেন। আজকের আর্টিকেলে আমরা তার রেখে যাওয়া শিক্ষামূলক বাণীর  ভান্ডার থেকে সামান্য কিছু শিক্ষামুলক বাণী বা উক্তি নিয়ে উপস্থাপন করেছি

রবীঠাকুরকে  সকলেই চিনে ও জানেন। তিনি ছিলেন একজন অসাধারন প্রতিভাবান ব্যাক্তি। তিনি একজন মহান সাহিত্যক হবার পাশাপাশি কবি, সমাজ সংস্কারক, নাট্যকার, চিত্রকার, গল্পকার ছিলেন। সবচেয়ে বড় কথা হলো তিনি আমাদের বিশ্বকবি।

অনেকেই রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের রেখে যাওয়া বাণীতে অনুপ্রাণীত হয়ে নতুনভাবে বাঁচতে শিখেছেন। নতুনভাবে নিজের মধ্যে প্রাণের সঞ্চার অনুভব করতে পেরেছেন। যার কারণে আপনাদের জন্য আজকের পোস্টে আমরা সেসকল সেরা বাণীসমূহ মোট ৫০০টি বাণী উল্লেখ করার চেষ্টা করেছি।

বিখ্যাত মনিষীদের বাণী সমগ্র

১.বিশ্ববিদ্যালয় হলো মহাপুরুষ নির্মাণের কারখানা। আর অধ্যাপক হলেন সেই মহাপুরুষ নির্মাণের কারিগর।…

২.শিশুবয়সে নির্জীব শিক্ষার মতো ভয়ংকর ভার আর কিছুই নাই। তাহা মনকে যতটা দেয়, তাহার চেয়ে পিষিয়া বাহির করে অনেক বেশি।’’

বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথের এই বাণী সমগ্র

৩. পৃথিবীর সবচেয়ে বড় দূরত্ব কি জানো?  জীবন থেকে মৃত্যু? না,  সবচেয়ে বড় দূরত্ব হলো  আমি যখন তোমার সামনে থাকি কিন্তু তুমি তখন টেরই পাওনা বা তুমি জানোই না যে আমি তোমাকে কতটা ভালোবাসি।

৪. ভালোবাসা কথাটা বিবাহ কথার চেয়ে অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ এবং অধিক বেশি জ্যান্ত।

৫. ক্ষমাই যদি তুমি তাকে করতে না পারো? তবে তাকে তুমি ভালোবাসো কেন?

৬. বন্ধুত্বের গভীরতা কখনোই পরিচয় এর দীর্ঘতার উপর নির্ভর করে থাকে না।

৭. প্রেমের মধ্যে যদি ভয় না থাকে তাহলে রস নিবিড় হয় না।

৮. আমরা স্বাধীনতা কখন পাই জানো যখন আমরা এর পর্যাপ্ত মূল্য দিতে পারি।

৯. প্রেমের আনন্দ থাকে সর্বক্ষণ কিন্তু দুঃখ ও বেদনা থাকে প্রতিটি মুহূর্ত।

১০. ধূলো তার অপমান সহ্য করার ক্ষমতা রাখে এবং এর বিনিময়ে সে আবারও ফুল উপহার দেয়।

১১.নিন্দা করার সময়  বাইরে থেকে করা যায়, কিন্তু বিচার বিশ্লেষণ করতে গেলে ভিতরে বা গভীরে প্রবেশ করতে হয়।

১২.যা কিছু আমাদের, তা আমাদের কাছে ঠিক তখনই পৌছাবে যখন আমরা তা গ্রহণ করার মত উপযুক্ত ক্ষমতা লাভ করি।

১৩.থালার মধ্যে রাখা জল সবসময় চকচক করে  কিন্তু সমুদ্রের জল সর্বদা গাঢ রঙের হয়ে থাকে। কিঞ্চিত সত্য কথা সর্বদাই স্পষ্ট, কিন্তু গাঢ সত্য সর্বদা নীরব এবং উজ্জ্বলতা কম।

১৪.অসম্পূর্ণ যে শিক্ষা বা জ্ঞান তা আমাদের দৃষ্টি নষ্ট করে দেয়—পরের দেশের ভালো মন্দ টা তো শিখতে পারিই না, অথচ নিজের দেশের ভালোটাও আমাদের দেখার শক্তি চলে যায়।

১৫.যদিও ফুল একাই থাকে, কিন্তু তাই বলে সে কখনোই কাঁটা  দেখে হিংসা করে না, কারণ সেও জানে কাঁটা তাঁর জীবনে কতটা গুরুত্বপূর্ণ।

১৬.পুষ্প একত্রিত করার জন্য থেমে যেও না, আগে চলতে থাকো, দেখবে তোমার চলার পথেই অজস্র পুষ্প ফুটে রয়েছে।

১৭.আদর সোহাগের সঙ্গে যদি রাগ না মেশে তাহলে ভালোবাসার স্বাদ থাকে না, যেমন তরকারিতে লঙ্কা মরিচ নুন থাকে খাবারের স্বাদ বৃদ্ধির জন্য

১৮.প্রত্যেক দেশের যুবকদের উপর ভার রয়েছে সংসারের সত্যকে নতুন করে যাচাই করে নেওয়া, সংসারকে নূতন পথে বহন করে নিয়ে যাওয়া, অসত্যের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষণা করা। প্রবীণ ও বিজ্ঞ যাঁরা তাঁরা সত্যের নিত্য নবীন বিকাশের অনুকূলতা করতে ভয় পান, কিন্তু যুবকদের প্রতি ভার আছে তারা সত্যকে পরীক্ষণ করে নেবে।

১৯.কৃতকার্য বা সফলতা হবার মতো শিক্ষা যাদের নেই””যারা কেবলমাত্র দৈবক্রমেই কৃতকার্য হয়ে ওঠে, তাদের সেই কৃতকার্যতাটা একটা বিষম বালাই।

২০.সুশিক্ষার জ্ঞানী ব্যক্তির লক্ষণ হলো যে, তাহা মানুষকে অভিভূত করে না, তাহা মানুষকে মুক্তিদান করে।

২১.সুখী হওয়াটা খুব সহজ, কিন্তু সহজ হওয়া খুব কঠিন।

২২.অধীক উচ্চতাই পৌঁছান, কারণ তারা আপনার মধ্যে লুকিয়ে আছে।

২৩.প্রতিটা স্বপ্ন এর লক্ষ্য পূর্বের জন্য, গভীর স্বপ্ন মৃত্যুর আলো নিভিয়ে দেয় না।

২৪.মানুষ প্রাণপণে প্রাণকে বাঁচাতে চায় কিন্তু প্রাণ তো বাঁচে না। সেইজন্যে বাঁচাবার শখ মেটাবার জন্যে এমন কিছুকে অন্বেষণ করে বেড়ায় যা প্রাণের চেয়ে অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ।

২৫.এমন ও দুঃখ থাকে যাকে ভোলার মত দুঃখ নেই।

২৬.যা দিলাম তা উজাড় ত্যাগ করিয়াই দিলাম। এখন ফিরিয়ে দেখতে গেলে দুঃখ পাইতেই হইবে। অধিকার ছাড়িয়া দিয়ে অধিকার রাখতে যাইবার মতো এমন বিড়ম্বনা আর কষ্ট আর নাই ।

২৭.বহুদূরের বিশাল আকাশ আজ বনরাজিনীলা

পৃথিবীর কাছে আজ নত হয়ে পড়ল।

কানে কানে বলল, আমি তোমারই।

২৮.সকল নিয়মেরই ব্যতিক্রম থাকে এবং ব্যতিক্রম কখন হঠাৎ করে ঘটে আগে হইতে তাহা কেহ বলিতে পারে না।

২৯. যদি দায়িত্ব হাতে না পাই তাহলে দায়িত্বের যোগ্যতা জন্মায় না

৩০.মা হয়ে কোলের শিশুকে ভুলাইতে হয়,স্ত্রী হইয়া শিশুর বাবা কে ভুলাইতে হয় মেয়েরা ছলনাময়ী।

বিখ্যাত মনিষীদের হৃদয়স্পর্শী বাণী

৩১.শিক্ষিত মানুষের কোনো অভাব নেই পৃথিবীতে, কিন্তু শিক্ষিত বিবেকের অনেক অভাব।

৩২.সর্বোচ্চ শিক্ষা হলো সেই শিক্ষা যেটি শুধু আমাদের তথ্য সম্বলিত জ্ঞানই প্রদান করে না বরং তাঁর সাথে সাথে জীবনকে বাস্তবতার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ করে তোলে।

৩৩.কৃতকার্য হবার মতো শিক্ষা যাদের নেই, যারা কেবলমাত্র দৈবক্রমেই কৃতকার্য হয়ে ওঠে  তাদের সেই কৃতকার্যটা একটা বিষম বালাই। উল্লেখ্য, বিষম বালাই এর সাধারণ অর্থ- কঠিন অমঙ্গল।

৩৪.সুশিক্ষার বা ভালো শিক্ষার লক্ষণ এই যে  তা মানুষকে অভিভূত করে না  তাহা মানুষকে মুক্তি প্রদান করে থাকে।

৩৫.বিশ্ববিদ্যালয় হলো মহাপুরুষ নির্মাণের কারখানা। আর অধ্যাপক হলেন সেই মহাপুরুষ নির্মাণের কারিগর।’

৩৬.মনুষ্যত্বের শিক্ষাটাই চরম শিক্ষা,,, আর সমস্তই তার অধীন।’’

কবিগুরুর কালজয়ী ও হৃদয়স্পর্শী কিছু বাণী

৩৭. সৌন্দর্যের আলো শুধু বাস্তবিকতা জানায় না, তা মনের ভিতরের অনুভূতি জাগ্রত করে

৩৮.নিজের ভার হালকা হয়ে যায় যখন আমি নিজের উপর হাসতে থাকি।

৩৯. শিক্ষার জন্য সারাজীবন প্রস্তুত থাকতে হবে, কিন্তু তা ব্যবহারে আসল জীবন বিপজ্জনক হয়।

৪০. সৌন্দর্য ছড়িয়ে বসে থাকে ক্ষমতায়,,সমস্ত আপুরুষের চেয়েও প্রচুর শক্তি তার অপর পাশে রয়েছে।

৪১. নদীর এপার কহে ছাড়িয়া নিশ্বাস,, ওপারেতে সর্বসুখ আমার বিশ্বাস। নদীর ওপার বসি দীর্ঘশ্বাস ছাড়ে  কহে, যাহা কিছু সুখ সকলি ওপারে।”

৪২.অন্যায় যে করে আর অন্যায় যে সহে তবে ঘৃণা তারে যেনো তৃণসম দহে।”

৪৩.কত বড়ো আমি,, কহে নকল হীরাটি। তাই তো সন্দেহ করি নহ ঠিক খাঁটি।”

৪৪.আমাদের চন্দ্রের যা কলঙ্ক সেটা কেবল মুখের উপরে,, তার জ্যোৎস্নায় কোনো দাগ পড়ে না।

৪৫.গোলাপ যেমন একটি বিশেষ জাতের ফুল, বন্ধু তেমনি একটি বিশেষ জাতের মানুষ।

৪৬.মানুষের প্রাণে বিষ মিশায়েছে মানুষ আপন হাতে, ঘটেছে তা বারে বারে।”

৪৭. লোকে ভুলে যায় দাম্পত্যটা একটা আর্ট,

প্রতিদিন ওকে নতুন করে সৃষ্টি করা চাই।

৪৮.সামনে একটা পাথর পড়লে

যে লোক ঘুরে না গিয়ে সেটা

ডিঙ্গিয়ে পথ সংক্ষেপ করতে চায়, 

বিলম্ব তারই অদৃষ্টে আছে।

৪৯.বিবেচনা করবার বয়স ভালোবাসার বয়সের উলটো পিঠে।

৫০.যৌবনের শেষে শুভ্র শৎরকালের মত 

একটি গভীর প্রশান্ত প্রগাঢ় সুন্দর বয়স আসে

যখন জীবনের শেষে ফল ফলিবার

এবং শস্য পাকিবার সময়।

৫১. শিখা একভাবে ঘরের প্রদীপরূপে জ্বলে,

আর একভাবে আগুন ধরাই দেয়।

৫২.পৃথিবীতে একদল লোক জন্মায় সেবা করাই তাহাদের ধর্ম। তাহারা আপন প্রকৃতির চরিতার্থতার জন্যই এমন অক্ষম মানুষকে চায় যে লোক নিজের ভার ষোল-আনাই তাহাদের উপর ছাড়িয়া দিতে পারে। এই সহজ সেবকেরা নিজের কাজে কোনো সুখ পায় না কিন্তু আর একজনকে নিশ্চিন্ত করা, তাহাকে সম্পূর্ণ আরামে রাখা, তাহাকে সকলপ্রকার সংকট হইতে বাঁচাইয়া চলা,লোকসমাজে তাহার সম্মানবৃদ্ধি করা, ইহাতেই তাহাদের পরম উৎসাহ। ইহারা যেন এক প্রকারের পুরুষ মা  তাহাও নিজের ছেলের নহে, পরের ছেলের।

৫৩.যিনি যতই মালা জপুন, পৃথিবীতে আমার মতোই সব বেটা। সংসারে সাধু-অসাধুর মধ্যে প্রভেদ এই যে, সাধুরা কপট আর অসাধুরা অকপট।

৫৪.সৌন্দর্য কেবল মুখের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়  সৌন্দর্য হল একটি প্রদীপ যা হৃদয়েতে থাকে।

৫৫.স্ত্রীর সঙ্গে স্বামীর স্বভাবের অমিল থাকলেই মিল ভালো হয়,শুকনো মাটির সঙ্গে জলধারার মতো।

৫৬.সৌন্দর্য হলো সমগ্র জীবনের শক্তি,  মনের সুখ এবং একটি উচ্চ আদর্শ।

৫৭.অন্তরের চীৎকারধ্বনি যদি বাহিরে শুনা যাইত, তবে সেই চৈত্রমাসের সুখসুপ্ত জ্যোৎস্নানিশীথিনী অকস্মাৎ তীব্রতম আর্তস্বরে দীর্ণ বিদীর্ণ হইয়া যাইত।

৫৮.ভালোবাসার উপহার দেওয়া যায় না, এটি গ্রহণ করার জন্য অপেক্ষা করে।

৫৯.মৃত্যু আলো নিভিয়ে দেয় না, প্রদীপ নিভিয়ে দেয় কারণ ভোর হয়ে এসেছে ।

৬০.ধূসর চুলগুলি জ্ঞানের লক্ষণ যদি আপনি আপনার জিহ্বা ধরে রাখেন, কথা বলেন এবং সেগুলি কেবল চুলই হয়, যেমন তরুণদের মধ্যে।

বিখ্যাত মনিষীদের সেরা বাণী

৬১.আমি রূপে তোমায় ভোলাব না , ভালোবাসায় ভোলাব । আমি হাত দিয়ে দ্বার খুলব না গো , গান দিয়ে দ্বার খোলাবো  ভরাব না ভূষণভারে , সাজাবো না ফুলের হারে প্রেমকে আমার মালা করে গলায় তোমার পরাবো ।

৬২.প্রেম যা দান করে , ততই তাহার সার্থকতার আনন্দ নিবিড় হয়।সে যত কঠিন দান ই হোক না কেনো

৬৩.যে পাওয়ার সঙ্গে না পাওয়া জড়িয়ে আছে সেই পাওয়াতেই মানুষের মন আনন্দিত।

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সেরা বাণী

৬৪.ফন্দি জিনিসটা খুব ভালো যদি তাহার মধ্যে নিজে আটকাইয়া না পরো।

৬৫.কর্মের দ্বারা অধিকার সৃষ্টি করতে হয় । অধিকার চেয়ে পাওয়ার জিনিস নয়।

৬৬. তুমি যতই তীরে দাঁড়াও বা জলের দিকে তাকাও না কেনো এতে কখনোই সমুদ্র অতিক্রম করা সম্ভব নয়।

৬৭. যার যোগ্যতা যত কম তার অহংকার ততটাই বেশি।

৬৮. কাউকে উপদেশ দেয়া সহজ কিন্তু উপায় বলা অত্যন্ত কঠিন।

৬৯. আমাদের এই প্রার্থনা করা অনুচিত যে বিপদ যেন আমাদের উপরে না আসে। বরং আমাদের এই প্রার্থনা করা উচিত যে আমরা সমস্ত বিপদ কে নির্ভয়ে মোকাবেলা করতে পারব।

৭০.  তুমি যদি সব ভুলের জন্যই দরজা বন্ধ করে দাও তাহলে সত্য বাইরেই চিরকাল থেকে যাবে।

৭১. বিদ্যা আবরণে আর শিক্ষা আচরনে।

৭২. বিদ্যা সহজ কিন্তু শিক্ষা কঠিন।

৭৩. মানুষ ভুলে যায় দাম্পত্য একটা আর্ট। প্রতিদিন সেটাকে নতুন ভাবে সৃষ্টি করতে হয়।

৭৪. খুশী ভাগ করলে দুইটি জিনিস  লাভ হয় একটি হচ্ছে প্রেম আর অপরটি হচ্ছে জ্ঞান।

৭৫. অক্ষম এর লোভ কেমন জানো এই লোভ হল আলাদিনের প্রদীপের গুজব শুনলে লাফিয়ে ওঠে।

৭৬. আমরা প্রত্যেকে সময়ের সমুদ্রে আছি কিন্তু আমাদের এক মুহূর্ত সময় নেই।

৭৭. দুর্বল রা কখনো সুবিচার করতে সাহস পায় না।

৭৮. মেয়েদের সম্মান মেয়েদের কাছে সবচেয়ে কম অর্থাৎ মেয়েদের সম্মান মেয়েরাই কম দেয়।

৭৯. যে নিজের অজ্ঞতা জানেনা  তার মত অজ্ঞান আর কেহ নহে।

৮০. সবাইকে খুশি করার জন্য তুমি তো পৃথিবীতে আসনি তাই ভালো থাকার জন্য তোমাকে একটু স্বার্থপর হতেই হবে।

দেশ-কাল সম্পর্কে বিখ্যাত মনিষীদের সেরা  বাণী

১| নদীর এপার কহে ছাড়িয়া নিশ্বাস,/ ওপারেতে সর্বসুখ আমার বিশ্বাস।/ নদীর ওপার বসি দীর্ঘশ্বাস ছাড়ে;/ কহে, যাহা কিছু সুখ সকলি ওপারে।

২| ধর্মের বেশে মোহ যারে এসে ধরে/ অন্ধ সে জন মারে আর শুধু মরে।

৩| কাঁচা আমের রসটা অম্লরস— কাঁচা সমালোচনাও গালিগালাজ। অন্য ক্ষমতা যখন কম থাকে তখন খোঁচা দিবার ক্ষমতাটা খুব তীক্ষ্ণ হইয়া উঠে।

৪| প্রত্যেক দেশের যুবকদের উপর ভার রয়েছে সংসারের সত্যকে নূতন করে যাচাই করে নেওয়া, সংসারকে নূতন পথে বহন করে নিয়ে যাওয়া, অসত্যের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষণা করা। প্রবীণ ও বিজ্ঞ যাঁরা তাঁরা সত্যের নিত্যনবীন বিকাশের অনুকূলতা করতে ভয় পান, কিন্তু যুবকদের প্রতি ভার আছে তারা সত্যকে পরখ করে নেবে।

৫| এ জগতে, হায়, সেই বেশি চায় আছে যার ভূরি ভূরি – রাজার হস্ত করে সমস্ত কাঙালের ধন চুরি।

৬| এসেছি আমি, আমি সেথাকার, দরিদ্র সন্তান আমি দীন ধরণীর। জন্মাবধি যা পেয়েছি সুখদুঃখভার বহু ভাগ্য বলে তাই করিয়াছি স্থির। অসীম ঐশ্বর্যরাশি নাই তোর হাতে, হে শ্যামলা সর্বসহা জননী মৃন্ময়ী। সকলের মুখে অন্ন চাহিস জোগাতে, পারিস নে কত বার — ‘কই অন্ন কই ‘ কাঁদে তোর সন্তানেরা ম্লান শুষ্ক মুখ। জানি মা গো , তোর হাতে অসম্পূর্ণ সুখ

৭| ও আমার দেশের মাটি, তোমার ‘পরে ঠেকাই মাথা। তোমাতে বিশ্বময়ী, তোমাতে বিশ্বমায়ের আঁচল পাতা

৮| বল বল বল সবে, শত বীণা-বেনু রবে; ভারত আবার জগতসভায় শ্রেষ্ঠ আসন লবে

৯| হাল ছাড়ব না, কিন্তু কোন দিক বাগে হাল চালাতে হবে সেটা যদি না ভাবি ও বুদ্ধিসংগত তার একটা জবাব না দিই তবে, মুখে যতই আস্ফালন করি, ভাষান্তরে তাকেই বলে হাল ছেড়ে দেওয়া।

১০| অসম্পূর্ণ শিক্ষায় আমাদের দৃষ্টি নষ্ট করিয়া দেয়—পরের দেশের ভালোটা তো শিখিতে পারিই না, নিজের দেশের ভালোটা দেখিবার শক্তি চলিয়া যায়।

জীবনদর্শন সম্পর্কে বিখ্যাত মনিষীদের সেরা উক্তি বাণী

৯১. মেয়েদের প্রেমের মধ্যে , বিশ্বাস আছে , নিষ্ঠা আছে , পরিতৃপ্তি আছে কিন্তু একটি পুরুষের প্রেমের মধ্যে যে একটি চির অতৃপ্তিপূর্ণ অনির্বচনীয় সুখ আছে তাহা বোধ করি খুব অল্প মেয়েই উপভোগ করিতে সক্ষম হইয়াছে” — স্ত্রী ও পুরুষের প্রেমে বিশেষত্ব ইহাই।

৯২. আমি আছি এটাই হচ্ছে সৃষ্টির ভাষা।

৯৩. জীবনের কোন লক্ষ্য নেই অথচ আপনার মধ্যে শিক্ষা আছে এটার কোন অর্থই নাই

৯৪. দানের সঙ্গে যদি শ্রদ্ধা এবং প্রেম থাকে তবেই তাহা সুন্দর এবং পূর্ণাঙ্গ দান হয়।

৯৫.নরকেও সৌন্দর্য আছে কিন্তু সুন্দর যেটা সবাই বুঝতে পারে না। আর এটাই নরকবাসীর সবচেয়ে বড় সাজা।

৯৬.প্রাণের ও সাধন করি নিবেদন তোমার চরণতলে, অভিষেক তার হল না তো আজ ও  তোমার করুণ নয়নজলে।”

৯৭. শুধু আমার সম্পত্তি নহে সে আমার সম্পদ।

৯৮. আমার প্রাণ যাহা চাই তুমি তাই। হয়তো তুমি তোমার নিজের মত আমিও তাই।

তবু ও বলবো আমার প্রাণ যা চাই তুমি তাই।

৯৯.পৃথিবী যখন আমার সাথে রঙে রঙে কথা বলে, ঠিক তখন ই আমার আত্মা গানে গানে উত্তর দেয়।

১০০. যদি তোমার ডাক শুনে কেউ না আসে তবে একলা চলতে হবে ।

১০১. পুরুষের জীবনে চারটি আশ্রম থাকে এবং সেই চারটে আশ্রমের থাকে চার অধিদেবতা। বাল্যকালে মা, যৌবনকালের স্ত্রী পড়ে কন্যা পুত্রবধূ বার্ধক্যে থাকে নাতনি নাত বউ। এমনই করেই মেয়েদের মধ্যে দিয়েই পুরুষ নিজের পূর্ণতা পায়।

১০২. আসল পাওয়া কাকে বলে  যে ব্যক্তি জানে না। ছোঁয়াকে ই সেই ব্যক্তি পাওয়া মনে করে। মূলত এটাই তার ভাবনা 

১০৩. যদি তুমি স্বাধীনতা পাইতে চাও তাহলে নিজেকে অধীন কর।

১০৪. ভগবানের সত্যিকারের প্রকাশ মানুষের মধ্যে থাকে।

১০৫. ফুলের মধ্যে যে আনন্দ সে প্রধানত ফলের প্রত্যাশার আনন্দ এটা অত্যন্ত সত্যি কথা

১০৬. আশা করবার অধিকার ই মানুষের মানসিক শক্তিকে প্রবল করে তোলে আমি আছি এইটাই হচ্ছে সৃষ্টির একমাত্র ভাষা।

১০৭. শিখবার সময় বাড়িয়া উঠিবার সময় প্রকৃতির সহায়তা নিতান্তই চাই।

১০৮. যে যুক্তি প্রমাণ মানে না সেটাই তো কুযুক্তি।

১০৯. ভালো চিঠি লেখা কঠিন কাজ কারণ চিঠিতে এমন সকল আভাস ইঙ্গিত ভাব ফলাতে হয় কেবল ভাবে ঝিকিমিকি গুলো মাত্র যে সে প্রায় কবিতা লেখার শামিল বললেই হয়।

১১০. পুত্রের মধ্যে পিতা নিজেকে দেখতে পাই নিজেকে উপলব্ধি করতে পারে আর সেই উপলব্ধিই হচ্ছে আনন্দ।

১১১. একা থাকা কোন দুর্বলতা নয় বরং একা থাকা খুব দুঃসাহসী একটি কাজ যা সবার পক্ষে সম্ভব নয়।

১১২. তুমি যাদের কাছ থেকে শুধু অবহেলায় পাবে তাদের গুরুত্ব দেয়া বন্ধ করে দাও। কারণ তোমার নিজেরও একটা আত্ম সম্মান আছে।

১১৩. আমরা সকলেই পৃথিবীতে কাউকে না কাউকে ভালোবাসি কিন্তু ভালবাসলেই কি আমরা বন্ধু হতে পারি? বন্ধু হওয়ার শক্তি আমাদের সকলের মধ্যে থাকে না।

১১৪. ভালবাসলে কষ্ট পেতেই হবে ভালোবাসার জগতে প্রাপ্তি বলে যদি কোন শব্দ থেকে থাকে তাহলে সেটার নাম হচ্ছে বেদনা।

১১৫. ভালোবাসা স্নেহ কখনো অতীত হয় না তা অনন্তকাল ধরে বর্তমান হয়ে বেঁচে থাকে।

১১৬. যখন প্রেমের মধ্যে ভয় থাকে তখনই রস নিবিড় হয়।

১১৭. যেখানে ভালোবাসা গভীর সেখানে নত হওয়া গৌরবের।

১১৮. যখন নারীর প্রেম কোন পুরুষকে চায় সেটা প্রত্যক্ষভাবেই চায় তাকে চিরন্তন নানা আকারে বেষ্ঠন করার জন্য সে ব্যাকুল হয়ে থাকে। মাঝখানে ব্যবধানের শূন্যতাকে সে সইতে পারে না।

১১৯. আসল প্রেম ভালোবাসা কখনোই অধিকার এর দাবি রাখে না বরং স্বাধীনতা দেয় যাতে সে নিজের মতো পথ চলতে পারে।

১২০. কারো পছন্দ হওয়াটা খুব সহজ একটি ব্যাপার কিন্তু চিরকাল তার পছন্দের হয়ে থাকাটা খুব কঠিন।

১২১. ভুল করে হয়তো ভালোবেসে ফেলা যায় কিন্তু ভুল করে কখনো কি ভোলা যায় যায় না ভুল করে কখনোই ভুলা যায় না।

সামাজিক বিষয়ে সম্পর্কে বিখ্যাত মনিষীদের বানী 

১২২. মুক্তি আরে তোরা মুক্তি কোথায় পাবি? 

মুক্তি কোথায় আছে 

আপনি প্রভু সৃষ্টি বাঁধন পড়ে বাধা সবার কাছে।

১২৩. বইয়ের ভিতরে যা আছে সেটা জানাকে আমরা পান্ডিত্য বলিয়া গর্ব করে থাকি জগতকে আমরা মন দিয়ে ছুই না , কিন্তু আমরা বই দিয়ে ছুই ।

১২৪. শিক্ষার একটা সুবিধা জনক সহায় হচ্ছে বই পড়া। তাহা আর আমাদের মনে হয় না আমরা বই পড়াটাকে শিক্ষার একমাত্র উপায় বলেই ঠিক করিয়া বসিয়া আছি।

১২৫. স্বাধীন চলাফেরার জন্য অনেকখানি স্থান রাখা প্রয়োজন না হলে আমাদের স্বাস্থ্য এবং আনন্দের ব্যাঘাত ঘটবে শিক্ষা সম্বন্ধেও এ কথা খাটে।

১২৬. যতটুকু কেবলমাত্র শিক্ষা অর্থাৎ অত্যাবশ্যক বা আবশ্যকীয় তাহার মধ্যেই শিশুকে একান্ত নিবদ্ধ রাখলে কখনোই তাহাদের মন যথেষ্ট পরিমাণে বাড়তে পারে না ছেলে ভালো করে মানুষ হতে পারে না বয়স প্রাপ্ত হইলেও বুদ্ধিবিত্ত সম্পর্কে সে অনেকটাই পরিমাণে বালক থেকে যায়।

১২৭. যে শিক্ষা তথ্য পরিবেশন করে না যা বিশ্ব সত্তার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয় বা না রেখে আমাদের জীবনকে গড়ে তোলে তাকেই আমরা বলি শ্রেষ্ঠ শিক্ষা ।

১২৮. স্ত্রীলোক যে প্রাধান্য লাভ করিয়াছে আমাদের সাহিত্যে তাহার প্রধান কারণ হচ্ছে আমাদের দেশের স্ত্রী লোক আমাদের দেশের পুরুষের অপেক্ষা অনেক অনেক শ্রেষ্ঠ।

১২৯. অধিকাংশ লোকে বউকে বা স্ত্রীকে বিবাহ করে, তাই না এবং জানেও না যে পাই নাই তাদেরকে স্ত্রীর কাছে আমি তো কাল এক খবর ধরা পড়বে না।

১৩০. মানুষের অধিকার কখনো চেয়ে নিতে হবে না অধিকার সৃষ্টি করতে হবে।

১৩১. অভ্যাসে যে মনকে পেয়ে বসে সে মনের মত গুলোর মরণ থেকে বিযুক্ত হয়ে যায় অর্থাৎ চিত্রা ধারায় সঙ্গে চিন্তিত বিষয় সম্বন্ধ শিথিল হয়।

১৩২. আমাদের মনে বাস্তবের অনুভূতি জাগিয়ে তোলে হচ্ছে আট আমাদের সত্তার সঙ্গে তার নিবিড় সম্পর্ক রয়েছে এবং তার নিজের সম্বন্ধ স্থাপন করে গভীর আনন্দের চেতনা এনে দেয় আট বা শিল্প।

১৩৩. শিখা এক ভাবে ঘরের প্রদীপ রূপে জ্বলতে জ্বলতে জ্বলতেই থাকে আর এক ভাবে আগুন ধরাইয়া দেয়।

১৩৪. পৃথিবীর শিয়র এর কাছে নত হয়ে পড়ল বহু দূরের অসীম আকাশ বর্ণালী নীলা কানে কানে বলল আমি তোমারি।

১৩৫. যে ছেলে চাওয়ার সাথে সাথে সবকিছু পেয়ে যাই চাওয়ার আগেই যার অভাব দূর হয়ে থাকে সে নিতান্তই দুর্ভাগা একজন মানুষ। কারণ সেই ব্যক্তি ইচ্ছে দমন করতে পারে না। এটা না শিখে কেউ কোন কালে সুখী হতে পারে না।

১৩৬. যে ব্যক্তিকে বাধা বিপত্তি মেনে চলতেই হবে সে যদি বুদ্ধি কে থেকে মেনে চলতে চায় তাহলে ঠোকর খেয়ে খেয়ে তার কপালটাও ফাটবেই

১৩৭. দায়িত্বের যোগ্যতা জন্মায় দায়িত্ব হাতে পেলে।

১৩৮. যার যত নাম বল তার সংসারটা ঘরে অল্প বাইরেই বেশি হয়ে থাকে।

১৩৯. আমিও ভাল আছি তুমিও ভালো থেকো এবং আকাশের ঠিকানায় চিঠি লিখ।

১৪০. একটা মানুষের সাথে আর একটা মানুষের রোগ গুণ স্বভাব কিছুই মূলত মেলে না কারণ তবু তো সেজন্যই দুই মানুষের মিলনে বাধা থাকে না।

১৪১. প্রায়শ্চিত্ত হলো নিজের দ্বার অপরাধের সংশোধন। আর শাস্তি পরের নিকট হতে অপরাধের প্রতিফলন।

১৪২. জ্ঞান যা জানে তা প্রকৃত বা আসল জানা নয়, প্রেম যা জানে তাহাই যথার্থ জানা

১৪৩. ধর্ম হচ্ছে সেই সংগীতশালা বা সেই সংগীত আশ্রম যেখানে বাবা তার ছেলেকে গান শিখাইছে।

১৪৪. জীবনে যা পাবো তা এই পথেই পাব।

১৪৫. যে ধর্ম অপমান করে যে ধর্ম অপমান শিখায় সে ধর্ম হচ্ছে মিথ্যা ধর্ম।

১৪৬. পাখির পাখরাও বাতাসের সঙ্গে মিল করে চলে। তাইতো তার এমন সুষমা।

১৪৭. ভালোবাসা হল যথার্থ জানা অর্থাৎ যথার্থ জানাকে ভালোবাসা বলে।

১৪৮. যে পাওয়ার সঙ্গে না পাওয়া জড়িতে থাকে সেই পাওয়াতেই মানুষের মন আনন্দিত হয় পুলকিত হয়।।

১৪৯. এ জীবন হচ্ছে আদিত্য দুঃখের তপস্যা।

১৫০. চলার পদ্ধতির মধ্যে বিবেচনার সংযম ও আবশ্যক এবং অবিবেচনার বেগ ও দরকার।

১৫১. নির্বোধের মুখোশ ই হচ্ছে গম্ভীর্য।

১৫২. ঐকতার বুদ্ধি হচ্ছে সকল সভ্যতার আরম্ভ।

১৫৩. অহংকার আমাদেরকে নিজের সংকীর্তন তার মধ্যে আবদ্ধ করে রাখে, যার ভক্তি নাই সে জানে না অহংকারের অধিকার কত সংকীর্ণ যার ভক্তি আছে সেই জানে নিজের বাহিরে যে বৃহত্তর যে মহত্ব তাহা অনুভব করাতেই মুক্তি।

১৫৪. মনুষ্য জাতির যে সকল সমস্যা গুরুতর সেই সমস্যাগুলোই চিরকালের

১৫৫. মানুষের মধ্যে দুটো দিক থাকে, একটা দিক হচ্ছে সে স্বতন্ত্র আরেকটা দিক হচ্ছে সে সকলের সঙ্গে যুক্ত।

১৫৬. একটি ছেলে এসে মাকে পৃথিবীর সকল ছেলের মা করে দেয়।

১৫৭. গঙ্গা নদীকে কলকাতা কিংকরি করেছে সুখী করতে পারেনি তাইতো অপমানিত নদী হারিয়েছে তার রূপ লাবণ্য সৌন্দর্য।

১৫৮. বিচারকগণ আপন শাসনের বন্ধু রয়েছে যাহা বন্দী হতেও বেশি বন্দী।

১৫৯. বিবাহ হল  সকল দেশেই ন্যূনতম পরিমাণে নারীকে বন্দী রাখবার জন্য একটা পরিকল্পনা

১৬০. বিশাল বিশ্বজগত মায়ের আত্মীয় এটা মাথায় শিশুকে জানিয়ে দিল। নইলে মাথা তার আপন হতো না

বন্ধুত্ব সম্পর্কে বিখ্যাত মনিষীদের সেরা বানী 

১| গোলাপ যেমন একটি বিশেষ জাতের ফুল, বন্ধু তেমনি একটি বিশেষ জাতের মানুষ

২| আমরা বন্ধুর কাছ থেকে মমতা চাই, সমবেদনা চাই, সাহায্য চাই ও সেই জন্যই বন্ধুকে চাই

৩| মানুষ পণ করে, পণ ভাঙিয়া ফেলিয়া হাঁফ ছাড়িয়া বাঁচিবার জন্য

৪| কবে আমি বাহির হলেম তোমারি গান গেয়ে, সে তো আজকে নয় সে আজকে নয়। ভুলে গেছি কবে থেকে আসছি তোমায় চেয়ে— সে তো আজকে নয় সে আজকে নয়।

বন্ধুত্ব সম্পর্কে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সেরা বানী
বন্ধুত্ব সম্পর্কে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সেরা বানী

৫| শুধু তোমার বাণী নয় গো, হে বন্ধু, হে প্রিয়, মাঝে মাঝে প্রাণে তোমার পরশখানি দিয়ো

৬| মোর জীবনের গোপন বিজন ঘরে, একেলা রয়েছ নীরব শয়ন ‘পরে; প্রিয়তম হে, জাগো জাগো জাগো

৭| ধীরে বন্ধু, ধীরে ধীরে চলো তোমার বিজনমন্দিরে। জানি নে পথ, নাই যে আলো, ভিতর-বাহির কালোয় কালো; তোমার চরণশব্দ বরণ করেছি আজ এই অরণ্যগভীরে

৮| আমার হিয়ার মাঝে লুকিয়ে ছিলে দেখতে আমি পাইনি তোমায় দেখতে আমি পাইনি। বাহিরপানে চোখ মেলেছি, আমার হৃদয়-পানে চাইনি…

৯| আমারে তুমি অশেষ করেছ, এমনি লীলা তব। ফুরায়ে ফেলে আবার ভরেছ জীবন নব নব।

১০| ভেঙে মোর ঘরের চাবি নিয়ে যাবি কে আমারে ও বন্ধু আমার! না পেয়ে  তোমার দেখা,  একা একা  দিন যে আমার কাটে না রে…

১৬১. সুন্দরের জবাব তো সুন্দর ই পাবে অসুন্দর যখন জবাব ছিনিয়ে নিতে চাই বিনার তার তখন আর বাজে না ছিড়ে যায়।

১৬২. যাত্রা করবার মানেই হলো মনের মধ্যে চলার প্রতিটি বেগ সঞ্চার করা।

১৬৩. আমাদের অন্তরের মধ্যে যে রাজা নামক ব্যক্তিটি আছেন তাকে আমরা শ্রদ্ধা করি না বলেই আজ তার রাজত্ব তিনি চালাতে পারছেন না।

১৬৪. যেখানে চিত্তের সত্য উদ্বোধন হয় সেখানে সত্য কর্ম আপনা আপনিই প্রকাশ পায়।

১৬৫. পূন্য হয় সে চলার স্নানে।

১৬৫. কত অজানারে জানালে তুমি 

কত ঘরে দিলে ঠাঁই

 দূর কে করলে আপন বন্ধু পর কে করিলে ভাই।

১৬৬. প্রাণের উদারতার সঙ্গীর্ণ হইতে থাকে যখন তার কিক বন্ধু দিকের সহবাসে থাকে

১৬৭. পাপকে ঠেকাবার জন্য যদি কিছু না করা হয় সেটাই আসল পাপ

১৬৮. আসল সত্যটা যে প্রত্যেকের উপরেই ভাসিয়া বেড়ায় তা নয়, ও প্রত্যেকের মধ্যেও ডুবে আছে এই জন্যই তাকে নিয়ে এত তর্ক এতো দলাদলি।

১৬৯. বন্দী দশা শুধু তো কারাগারে প্রাচীরের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয় মানুষের অধিকার সংক্ষিপ্ত করায় তো বন্ধন

১৭৬. এই দুনিয়ার প্রতি অত্যধিক আকর্ষণ ই সকল দুঃখের মূল।

১৭৭. তোমার সবচেয়ে কাছের একজনের কাছ থেকেই তুমি ভবিষ্যতের সবচেয়ে বড় কষ্টটি পেতে পারো।

১৭৮. সেই ব্যক্তি ব্যক্তিত্বহীন যে সবার সাথে তাল মিলিয়ে কথা বলে।

৭৭৯. কাউকে বিশ্বাস না করা বিপদজনক কিন্তু প্রত্যেককে বিশ্বাস করা আরও বিপদজনক।

১৮০. বই হচ্ছে মানুষের প্রকৃত বন্ধু। কারণ বই মানুষের সাথে শত্রুতা করে না।

১৮১. আলোতে একা হাঁটার থেকে বন্ধুকে নিয়ে অন্ধকারে হাঁটাও ভালো।

১৮২. মানুষের সাফল্য সবটুকু করতে পারাতে নয় মানুষের সর্বোচ্চ সাফল্য সাধ্যমত করতে পারায়।

১৮৩. যারা জ্ঞানী তাদের কানটা বড় হয় এবং জিভটা ছোট হয়।

১৮৪. যেটা সঙ্গে মানুষের লোভের সম্বন্ধে জড়িত আছে তার কাছ থেকে মানুষ প্রয়োজন উদ্ধার করে কিন্তু কখনো তাকে সম্মান করে না।

১৮৫. আমার আমির মধ্যেই ব্যর্থতা থাকে তবে অন্য কোন আমৃত্ত লাভ করে তা নিশ্চিত পাওয়া যায় না।

১৮৬. সাধুরা কপাট হয় আরো অসাধারণ অপপট সংসারে সাধু অসাধর মধ্যে প্রভেদ এটাই।

১৮৭. নকল হিরাটি কহে কত বড় আমি। তাইতো সন্দেহ করি ন’হটি খাঁটি।

১৮৮. যদি তুমি ভুল করার রাস্তা বন্ধ করে দাও তাহলে ঠিক করার রাস্তাও একা একাই বন্ধ হয়ে যায়।

১৮৯. গাছ বড় হওয়ার পর গাছের ছায়াও তার বসা হবে না জেনেও যে গাছ লাগাই সে  জীবনের অর্থ বুঝতে শুরু করেছে।

১৯০. কোন শিশুর জ্ঞানকে নিজের জ্ঞানের ভান্ডারের মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখবেন না কারণ তার জন্ম এক সময়ে আর আপনার জন্ম আরেক সময়।

১৯১. যে ব্যক্তি শুধুমাত্র নিজেদের নিয়েই ব্যস্ত থাকে সে অন্যের দুঃখ কষ্ট উপলব্ধি করতে পারে না

১৯২. যাকে মন থেকে শ্রদ্ধা করা যায় না তাকে হৃদয় দিয়েও ভালবাসা যায় না

১৯৩. তুমি যদি কোন মানুষকে পরিপূর্ণভাবে জানতে এবং বুঝতে চাও তাহলে তাকে ভালবাসতে শেখো

১৯৪. অতিরিক্ত বে ফাঁস কথা বলা থেকে চুপ থাকাটাই শ্রেয়।

১৯৫. ব্যর্থত থাকে মেনে নেওয়া যায় কিন্তু চেষ্টা না করে বসে থাকাকে মেনে নেয়া যায় না।

১৯৬. তোমাকে সময়ের মূল্য দিতে হবে যদি তুমি বড় হতে চাও।

১৯৭. যারা ধৈর্যশীল ব্যক্তি তাদের ক্রোধ থেকে সাবধান হোন।

১৯৮. পৃথিবীর সবচেয়ে অসুখী ব্যক্তিত্ব সেই ব্যক্তি যে মন খুলে হাসতে পারে না।

১৯৯. পৃথিবীতে সবচেয়ে সহজ কাজ হচ্ছে অন্যদেরকে উপদেশ দেওয়ার সবচেয়ে কঠিন কাজ হচ্ছে নিজেকে চেনা বা জানা।

২০০. গরিব খোঁজে খাদ্য আর ধনী ব্যক্তিরা খিদে খোঁজে।

২০১. দুঃখের বন্ধন দি রতন আনন্দের চেয়ে।

২০২. প্রায়চিত্ত হল নিজেরদার অপরাধের সংশোধন আর শাস্তি হলো পরের নিকট হইতে অপরাধের প্রতিফলন।

২০৩. সমস্ত পৃথিবীর সঙ্গে যখন আমরা দেনা পাওনা করব তখনই আমরা মানুষ হইতে পারিব।

২০৪. জ্ঞান যেটা জানে সেটা প্রকৃত জানা নয়, প্রেম যেটা জানে সেটাই যথার্থ জানা।

২০৫. বুদ্ধির জড়তা ও সংক্ষিপ্ততা সকল দেশের সকল কালেই গ্রাম্য তার নামান্তর হয়ে গেছে।

২০৬. লোকালয়ে প্রাণী হচ্ছে সামাজিকতা।

২০৭.মহাপুরুষদের আসার সার্থকতাই হচ্ছে তারা বিরোধ নিয়ে আসে

২০৮. অহংকার আমাদেরকে নিজের সংকীর্ণতার মধ্যে বদ্ধ করে রাখে, যার ভক্তি নাই সে জানেনা অহংকারের অধিকার কত সংকীর্ণ হতে পারে। যাহার ভক্তি আছে সেই জানে নিজের বাহিরে যে বৃহত্তর যে মহত্ব তাহা অনুভব করাতেই মুক্তি রয়েছে।

২০৯. পুরুষ ভজনার জন্যই কি এই প্রবণতা তার কারণ আর কিছুই নয় নারী কামিনী ও জননী কামিনী হিসেবে আছে আর আদিম যৌন ক্ষুধা আর জননী হিসেবে ও তার মাতৃত্বের গর্ব থাকে।

২১০. মানুষ এখন আপন উন্নতির সঙ্গে সঙ্গে ব্যক্তি সীমাকে পেরিয়ে বৃহৎ মানুষ হয়ে উঠছে তার সমস্ত শ্রেষ্ঠ সাজানো এই বৃহৎ সাধনা।

211.. প্রান্  কেবল শরীরেরই থাকে না মনেরও প্রাণ থাকে মনের মধ্যেও চেষ্টা আছে মন চলছে মন বাড়ছে মনের ভাঙ্গা গড়া পরিবর্তন হচ্ছে। এই স্পন্দিত তরঙ্গের মন কখনোই শুধুমাত্র আমরা আমার ক্ষুদ্র বেড়াটির মধ্যে আবদ্ধ নয়।

212.. বিপদে আমাকে বাঁচাও রক্ষা কর এটা আমার প্রার্থনা নয় তোমার কাছে ঈশ্বর

আমার প্রার্থনা এটাই যে বিপদে আমি ভয় যেন না করি।

213.. পাপ হলো মানুষের প্রতি বিশ্বাস হারানো।

214.. যারা ভাবুক হয় সেই লোকগুলোই অনুভব করেছেন যে আমরা মাঝে মাঝে এক প্রকার বিষন্ন সুখের ভাব উপভোগ করে তাহা কমল বিষাদ অপপ্রক্ষর সুখ তা আর কিছু নয় সীমা হইতে অসীমের প্রতি ।

215.. যাকে আমরা সুন্দর বলি তার কোটা সংকীর্ণ। আর যাকে আমরা মনোহর বলি তা বহুদূর পর্যন্ত প্রসারিত হয়ে থাকে।

217.. ছুটি কি দেওয়া যায় ছুটিকে এত সহজেই কাউকে দেয়া যায়? ছুটি কি একটা জিনিস? ছুটি হলো ফাঁকা

251. মানুষ বড়ই স্বার্থপর। যে রোদকে মানুষ শীতের সময় ভালোবাসে সেই রোদকেই গরমে তিরস্কার করে।

252. তোমার গুরুত্ব মানুষের কাছে ততদিন যতদিন তার প্রয়োজন।

253. অন্যকে যদি কাদাও তাহলে তোমার নিজেকেও কাঁদতে হবে কারণ বিবেকের চেয়ে বড় আদালত আর কোথাও নেই।

254. সত্যবাদী বোকা রাই বেশি হয়।

255. অন্যকে মিথ্যে বলে হাসানো হচ্ছে কাঁদানো ভালো।

256. কষ্ট মানুষ সবার জন্য পায় না চোখে জল সবার জন্য পড়ে না তবে যার জন্য পড়ে সে তো তার মূল্য দিতেই পারে না এবং বুঝেই না।

257. সর্বদা ভালো কর্ম করে যাও ফলের আশা করোনা। যেকোনো কর্মের ফল অবশ্যই সম্ভবই পাবেই

258. স্বর্গ নরক মানুষের মাঝেই রয়েছে।

259. যদি তোমার মনে হয় যে তুমি হারিয়ে ফেলেছ সব কিছু তাহলে ভেঙে পড়ো না মনে রেখো গাছের পাতারাও কিন্তু প্রতিবছর তাদের পাতা হারায়। কিন্তু তবুও তারা দাঁড়িয়ে থাকে এবং আগামী তে আবারও নতুন পাতার সঞ্চার হয়।

260. কষ্ট হয়তো অনেক মানুষেরই চোখের জল ঝরায় কিন্তু কষ্টই একমাত্র জীবনের নতুন কিছু শেখাতে পারে এবং উঠে দাঁড়াতে সাহায্য করে।

261. যারা পাশে থাকলে বলল বোঝেনা তাদের থেকে দূরে সরে যেতে হয় তাহলে তারা সঠিক মূল্য বুঝলেও বুঝতে পারে।

262. উপকারী গাছের ছাল নেই আর ভালো মানুষের দাম নেই এটাই বাস্তবতা।

263. যখন প্রিয় মানুষের কথা বলায় আগ্রহ কমে যায় তখনই মানুষ কষ্ট পায় সবচেয়ে বেশি।

264. প্রেম কি জিনিস জানেন? যা ফ্রিতে পাওয়া যায় ছোটবেলায়। অর্জন করতে হয় যৌবনে আর বৃদ্ধ বয়সে ভিক্ষা করতে হয়।

265. বর্তমান মানুষের কথা চিন্তাভাবনা স্ট্যাটাসের সাথে বাস্তবতার কোন মিল পাওয়া যায় না।

266. যদি পারো ভালোবেসো, আর যদি তাও না পারো ঘিন্না কর কিন্তু ভালোবাসার অভিনয় কর না।

267. মিথ্যে করে যদিও হাসা যায় কিন্তু মিথ্যে করে কখনো কাঁদা যায় না কারন ভেতর থেকে আসে কান্নাটা উপর উপর তো সবাই হাসে।

268. কোন কিছু নিয়ে তর্ক করার থেকে চুপ থাকাটাই শ্রেয় কারণ জীবনে যত বড় হবে যত বড় মনের মানুষ হবে ঠিক ততটাই এটা বুঝতে পারবে।

269. যার মধ্যে আলোচনা ও যোগ্যতায় ভরপুর সমালোচনা তাকে নিয়েই বেশি হয়।

270. যদি তোমার লোক ঠকানোর অভ্যাস থাকে তাহলে সেটা ত্যাগ করো কারণ তুমি যাকে ঠকাবে সে সে ঠকতে ঠকতে একদিন ঠিকই শিখে যাবে আর তুমি একদিন নিজে ফেঁসে যাবে ঠকাতে ঠকাতে।

271. যদি শরীর খারাপ হয় তাহলে সেটা ঠিক করার লোক তুমি অনেক পাবে, কিন্তু সময় যদি একবার খারাপ হয়ে যায় সেটা তোমাকে নিজেকে ঠিক করতে হবে।

272. যদি তোমার মধ্যে সফল হওয়ার যথেষ্ট মনের জোর থাকে ব্যর্থতা কখনো তোমাকে ঠকতে যেতে পারবে না

273. ক্ষমতাকেই করা উচিত যে মনের অজান্তে ভুল করে কিন্তু তাকে কখনোই ক্ষমা করা উচিত নয় যে জেনে বুঝে বেইমানি করে।

274. চরিত্র  এমন ভাবে তৈরি কর  যেন রাস্তা দিয়ে বাড়ি ফেরা মেয়েটাও তোমাকে দেখলে ভরসা পায় ভয় নয়।

275. সম্পর্ক ভেঙ্গে গেলেও দুটো জিনিস থেকে থাকে একটা হচ্ছে অনুভূতি আর দ্বিতীয় টা হচ্ছে মায়া।

276. অনেক বড় বিশ্বাস ভেঙ্গে যায় ছোট একটি মিথ্যার জন্য।

277. স্বার্থ ছাড়া পৃথিবীতে কিছুই নেই । কারণ জোসনা স্বার্থেই কিন্তু মানুষ চাঁদকে ভালোবাসে।

278. যেটা পাওয়া অসম্ভব আমরা সেই জিনিসটাকে বেশি পছন্দ করি।

279. কাউকে যদি ভালোবাসো তাহলে এতটাই ভালোবাসো যে সে কষ্ট পেলে তোমাকেই মনে করে।

280. ভালোবাসা হঠাৎ করেই হয় প্রস্তুতি দিয়ে কখনো ভালোবাসা হয় না।

বিখ্যাত মনিষীদের সেরা কিছু ভালোবাসার উক্তি 

১| আজকাল সবাই যেটাকে ভালবাসা বলে সেটা একটা স্নায়ুর ব্যামো – হঠাৎ চিড়িক মেরে আসে, তারপর ছেড়ে যেতেও তোর সয় না

২| অমন আড়াল দিয়ে লুকিয়ে গেলে চলবে না। এবার হৃদয়মাঝে লুকিয়ে বোসো, কেউ জানবে না, কেউ বলবে না

৩| ক্ষমাই যদি করতে না পার তবে তাকে ভালবাস কেন?

৪| প্রেমের মধ্যে ভয় না থাকলে রস নিবিড় হয় না 

৫| আনন্দকে ভাগ করলে দুটি জিনিস পাওয়া যায় – একটি হচ্ছে জ্যান, অন্যটি হচ্ছে প্রেম

৬| পৃথিবীতে বালিকার প্রথম প্রেমের মতো সর্বগ্রাসী প্রেম আর কিছুই নাই, প্রথম জীবনে বালিকা যাকে ভালবাসে তাহার মতো সৌভাগ্যবানও আর কেহই নাই। যদিও সে প্রেম অধিকাংশ সময়ে অপ্রকাশিতই থেকে যায়, কিন্তু সে প্রেমের আগুন সব বালিকাকে সারা জীবন পোড়ায়।

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সেরা কিছু ভালোবাসার উক্তি
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সেরা কিছু ভালোবাসার উক্তি

৭| প্রেমের আনন্দ থাকে স্বল্পক্ষণ কিন্তু বেদনা থাকে সারাটি জীবন।

৮| ভালবাসা কথাটা বিবাহ কথার চেয়ে অধিক বেশি জ্যান্ত।

৯| আমি তোমাকে অসংখ্যভাবে ভালবেসেছি, অসংখ্যবার ভালবেসেছি। এক জীবনের পর অন্য জীবনেও ভালবেসেছি । বছরের পর বছর, সর্বদা, সব সময়ে।

১০| তুমি যদি না দেখা দাও, করো আমায় হেলা; কেমন করে কাটে আমার এমন বাদলবেলা

১১| সে আমার সম্পত্তি নয়, সে আমার সম্পদ।

১২| ভালোবাসা হল একমাত্র বাস্তবতা, এটি শুধুমাত্র আবেগ দিয়ে নিয়ন্ত্রিত নয়। এটি হল একটি চিরন্তন সত্য জা জেই হৃদয়ে সৃষ্টি হয়, সেই হৃদয়ে থাকে।

১৩| তবু মনে রেখো। যদি দূরে যাই চলে, যদি পুরাতন প্রেম ঢাকা পড়ে যায় নব প্রেমজালে।

১৪| পৃথিবীর সবচেয়ে বড় দুরত্ব কোনটি জানো? না, জীবন থেকে মৃত্যু পর্যন্ত, উত্তরটা সঠিক নয়। সচেয়ে বড় দুরত্ব হলো যখন আমি তোমার সামনে থাকি কিন্তু তুমি জানো না যে আমি তোমাকে কতটা ভালোবাসি।

১৫| ভাবছি তোমাকে পাওয়া হয়ে গেলে কি হত। হয়ত তোমাকে দেখতে দেখতে মনটা ভরে যেত, নীল শাড়িতে একটি নীল পরী আমার চারপাশে ঘুর ঘুর করত, বুকের ভেতর তুমিহীনতার টনটন ব্যাথাটা আর থাকত না।

১৬| সোহাগের সঙ্গে রাগ না মিশিলে ভালোবাসার স্বাদ থাকে না, তরকারিতে লঙ্কামরিচের মতো 

১৭| কাছে আছে দেখিতে না পাও, তুমি কাহার সন্ধানে দূরে যাও। মনের মতো কারে খুঁজে মরো, সে কি আছে ভুবনে? সে তো রয়েছে মনে।

১৮| লোকে ভুলে যায়, দাম্পত্যটা একটা আর্ট, প্রতিদিন ওকে নতুন করে সৃষ্টি করা চাই।

১৯| ভালোবাসা হল একমাত্র বাস্তবতা, এটি শুধুমাত্র আবেগ দিয়ে নিয়ন্ত্রিত নয়। এটি হল একটি চিরন্তন সত্য জা জেই হৃদয়ে সৃষ্টি হয়, সেই হৃদয়ে থাকে।

২০| বেঁধেছ প্রেমের পাশে ওহে প্রেমময়, তব প্রেম লাগি দিবানিশি জাগি ব্যাকুলহৃদয়।

বিখ্যাত মনিষীদের আরো কিছু সেরা বাণী সমগ্র:

281. কখনো কখনো অতিরিক্ত কথা বলার চেয়ে চুপ থাকাই শ্রেয়।

282. কাউকে চোখ বুঝে বিশ্বাস করা উচিত নয়। সবার মাঝেই শয়তানি লুকিয়ে থাকে।

283. আমাদের সব সময় প্রয়োজনের অতিরিক্ত খাওয়া উচিত নয়। কারণ এতে শরীর অসুস্থ হতে পারে।

284. খাবার খাওয়ার আগে ভালো করে হাত ধুয়ে খাওয়া উচিত। নইলে হাতের জীবাণু গুলো খাবারের মধ্যে ঢোকে।

285. অনলাইনের প্রেম কখনোই পুরোপুরি খাঁটি হয় না। কারণ এটাতে ফিলিংস কম।

286. চকচক করলেই সোনা হয় না। ঠিক তেমন মানুষের বাইরেটা দেখে ভেতরটা অনুধাবন করাও যায় না।

287. রূপ দেখে নয় গুণ দেখে বিচার করো।

288. সুখ দুঃখ নিয়ে আমাদের এই জীবন তাই দুঃখ নিয়ে হতাশ হওয়া যাবেনা।

289. যদি তুমি স্বপ্ন হতে চাও তাহলে তুমি পরিশ্রম করো পরিশ্রম করলেই সফল হওয়া সম্ভব।

290. ধৈর্য মানুষের জীবনে সফলতা একটা উপায়।

291.আমাদের উচিত সর্বদা সত্য কথা বলা। কারণ মিথ্যা এক সময় প্রকাশিত হবেই

292. সময় ও স্রোত কখনো কারো জন্য অপেক্ষা করে না।

293. সময়ের মূল্য অবশ্যই দেয়া উচিত কারণ একবার সময় হারিয়ে গেলে সেটা আর ফিরে পাওয়া সম্ভব না।

294. সর্বদা জ্ঞানী ব্যক্তিদের সাথে মেশা উচিত।

295. দুষ্টু লোকেরা সব সময় মিষ্টি কথাতে মানুষকে ভুলিয়ে রাখে।

296. কয়লার যেমন ময়লা যায় না ধুলে। ঠিক তেমনি কিছু মানুষকে যতই বোঝাও তারা বুঝবে না।

297. যে সর্বদা ধর্মের নৌকা প্রস্তুত করে সে ঠিকই পার হয়ে যায়।

298. জন্ম ও মৃত্যু ই চির সত্য এর উপরে আর কিছু নেই।

299. দেহের মৃত্যু হলেও আত্মার কখনো মৃত্যু হয় না। আত্মা অবিনশ্বর।

300. জীব মাত্রই সুখ-দুঃখ ভোগ করে। তাই দুঃখে বিচলিত হওয়া যাবে না।

301. যেমন সাপ বিড়াল আর ধনুক সর্বদা ঝুঁকেই আক্রমণ করে ঠিক তেমনি অসাধু ব্যক্তির নম্রতা ও ভীষণ দুঃখ দেখে আনতে পারে।

302. যে কর্মই আমরা করি না কেন তার ফল আমাদেরই ভোগ করতে হবে।

303. কর্ম করার আগে অবশ্যই বিচার করা উচিত।

304. ইচ্ছে সিদ্ধান্ত আর নিশ্চয়তা এই শব্দগুলো আমরা আমাদের জীবনে অনেক বার শুনেছি তাই না জীবনে অনেক সময় অনেক কিছু পেতে খুব ইচ্ছা করে কিন্তু শুধু ইচ্ছা হলেই কি সবকিছু পাল্টায় সবকিছু পাওয়া যায়? অনুর্বর জমিতে বাস করা ব্যক্তির ইচ্ছা হয় যেন সে শীতল জল পায় কিন্তু সে পায় না যে এক কুয়ো খোরার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সে মাটি করার জন্য কোদাল অবশ্যই পেয়ে যায়। তাই জীবনে কেবল ইচ্ছা করবেন না সিদ্ধান্ত নিন এবং তারপর নিশ্চিত করুন। সব পেয়ে যাবেন।

305. তাদের মমতা আছে যারা অন্যের কষ্ট বোঝে এবং হৃদয় থেকে যারা শুদ্ধ তাদের আর জন্ম নিতে হয় না।

306. কর্মই তোমার আসল পরিচয় নইলে এক নামে এক পরিচয় তো অনেক মানুষই থাকে।

307. যা হবার তা হয়েই থাকে আর যা হওয়ার নয় তা কখনোই হয় না। তারাই কখনো চিন্তা করে না যাদের এই দৃঢ়তা মনে থাকে।

308. ভালোবাসা হলো এমন এক জিনিস যা সর্বদা ক্ষমা চাইতে পছন্দ করে এবং অহংকার সর্বদা ক্ষমা চাওয়াতে পছন্দ করে।

309. আগে খারাপ হও যে যা ভাবে ভাবুক পাত্তা দিও না তাহলে ঈশ্বরের কাছে যা চাইবে তাই পাবে ও সফল হতে পারবে।

310. যে আপনার কথার কোন মূল্য দেয় না তার প্রতি মূল্য থাকায় শ্রেষ্ঠ উত্তর।

311. সমস্যাগুলো ততটা শক্তিশালী নয় যতটা আমরা মনে করি কখনো কি শুনেছো অন্ধকার সকাল হতে দেয়নি।

312. শুরুটা নিজের থেকে হওয়া উচিত ভুল খোঁজা ভুল নয়।

313. মাঝে মাঝে চুপ থাকাই উচিত এটা জরুরি নয় যে প্রতিবার তোমার কথা কে সঠিক মনে করা হবে।

314. যে ব্যক্তি যত শান্ত মস্তিষ্কের সে ততোই গভীরভাবে তার বুদ্ধির প্রয়োগ করতে পারে

315. তোমার চিন্তার ওপর নির্ভর করে তোমার পরাজয় ও জয় তাই তোমাকে মেনে নিতে হবে তবে পরাজয় হবে আর যদি তুমি দৃঢ়প্রতিজ্ঞ হও তবে বিজয় হবে।

316. যে সফলতায় গর্বিত হয় না এবং ব্যর্থ হলে দুঃখে ডুবে না সেই সবচেয়ে বিচক্ষণ ও স্থির মনের মানুষ।

317. মানুষকে তার কর্মের ফলাফল অনুযায়ী প্রাপ্ত জয় পরাজয় লাভ ক্ষতি সুখ দুঃখ ইত্যাদি পরিমতি ভেবে চিন্তা করস তো হওয়া উচিত নয়।

318. সেবা অবশ্যই সবার করো। কিন্তু কারো কাছ থেকে আশা রেখো না সেবার প্রকৃত মূল্য একমাত্র ভগবানই দিতে পারে।

319. রেগে গেলে চুপ থাকতে অনেক শক্তির প্রয়োজন চিৎকার করতে কোন শক্তির প্রয়োজন হয় না।

320. ধৈর্যবান তো সেই ব্যক্তি যে রেগে গিয়েও চুপ থাকে।

321. যে জিনিসটা তোমার সেটা তোমার কাছ থেকে কেউ নিতে পারবে না সেটা তোমার হয়েই থাকবে সারা বিশ্বের সংসার এক হয়ে গেলেও তোমার কাছ থেকে সেই জিনিসটা কেউ নিতে পারবে না।

322. শিশুরা যেখানে আনন্দ খুঁজে পাই সেখানেই যাই আর শিশুরা সেখানেই থাকতে চাই যেখানে তারা ভালোবাসা পায়।

323. যে মরে যায় কিন্তু তার খারাপ কাজগুলো পৃথিবীতে রয়ে যায় সেই ব্যক্তি অভিশপ্ত।

324. জেতার রব কে ভয় করে সে একাকীত্ব অনুভব কখনোই করেনা সুতরাং তোমরা তোমাদের রব কে ভয় করো।

325. যার ধৈর্য রয়েছে সে সবসময় সফলতা অর্জন করতে পারবে তবে হয়তো তার সফলতা অর্জন করার জন্য একটু বেশি সময় লাগতে পারে।

326. আমি যাকে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব এবং সম্মান দিয়েছি সে আমার ঠিক ততটুকু ক্ষতি করেছে।

327. যে ব্যক্তি অপরের কষ্ট দূর করার জন্য নিজে কষ্ট করে সেই প্রকৃত মহৎ ব্যক্তি।

328. গুনাহ যতই ছোট ছোট হোক সেগুলোকে কখনো হালকা মনে করো না কেননা সামান্য আগুনের ফুলকি থেকে বড় অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত হয়।

329. দূরত্বকে দান করিলে সেই দানের একটি পুরস্কার আছে কিন্তু অভাবগ্রস্ত আত্মীয় স্বজনদের দান করেলে সেই দানের জন্য দুইটি পুরস্কার রয়েছে।

330. পরম বিজয় তো সেটাই যেটার মাধ্যমে অভ্যাসকে জয় করা যায়।

331.মা বাবার মতো দুনিয়ায় আপন কেও নেই। তাই তাদের সময় থাকতে গুরুত্ব দাও।

332. এই পৃথিবীতে মানুষের সবচেয়ে বড় শত্রু হচ্ছে তার মন কারণ মন চায় না তুমি লাইফে সাকসেসফুল হও কিন্তু এই মন সবার জন্য শত্রু নয় কিছু মানুষ তাদের মনকে কাজে লাগিয়ে সবকিছু হাসিল করে নেই।

333. মস্তিষ্ক একটা মানুষের নড়াচড়া আবেগ এবং বিভিন্ন শারীরিক কাজ নিয়ন্ত্রণ করে।

334. মন একটা মানুষের নৈতিকতা যুক্তি এবং কোন কিছু বোঝার ইঙ্গিত এবং সেই সবকিছু নিয়ন্ত্রণ করে থাকে।

335. জীবনের সবচেয়ে বড় প্রতিশোধ হলো নিজেকে এমন ভাবে গড়ে তুলতে হবে যারা তোমার খারাপ করছে তারা তোমার সাফল্য দেখে যেন নিজেদের কাছে নিজে ছোট হয়ে যায়।

336. লেবু বেশি চিপলে যেমন তেতো হয় তেমন কাউকে বেশি গুরুত্ব দিলেও তার অহংকার বেড়ে যায়।

337. যে কাউকে চাহিদার থেকে অতিরিক্ত ভালোবাসা দেওয়া উচিত নয়।

338. আমরা যে তিনটি জিনিস বিনামূল্যে পাই সেই তিনটি জিনিস হল সময় ,বন্ধুত্ব , আর সম্পর্ক। কিন্তু তাদের আসল মূল্য তখনই বোঝা যায় যখন তারা জীবন থেকে হারিয়ে যায়।

339. কাউকে ব্যথা দিয়ে দুঃখিত বলাটা অনেক সহজ কিন্তু কারো কাছ থেকে ব্যথা পেয়ে কিছু হয়নি বা ঠিক আছে বলাটা অনেক কঠিন।

340. যদি তোমার কখনো গর্ব হয় যে তুমি ছাড়া দুনিয়া অচল তাহলে দেয়ালে টাঙানো পূর্বপুরুষদের ছবির দিকে তাকিয়ে উত্তর পেয়ে যাবে। তারা নেই বলে কি দুনিয়া থেমে আছে?

341. তিনটা জিনিস কখনোই ফিরে আসে না সেগুলো হচ্ছে সুযোগ, কথা এবং সময়।

342. তিনটা জিনিস কখনোই হারানো উচিত নয় শান্তি, আশা এবং সততা।

343. আমি সব সময় তোমার হৃদয় থাকবো এবং তুমি যদি আমাকে ঘৃণাও কর তবুও আমি তোমার মনে থাকবো।

344. ভাষা হচ্ছে মানুষের হৃদয়ের চাবিকাঠি।

345. যারা প্রকৃত জ্ঞানী তারা সবসময় চুপ থাকে এবং অনুধাবন করে সবকিছু।

346. আশা আছে বলেই মানুষ বেঁচে থাকার স্বপ্ন দেখে যদি আশা না থাকতো তবে হৃদয় অসংখ্য বার ভেঙে যেত।

347. যা হৃদয় অনুধাবন করে তার চোখেই বলে দেয়। সত্যিকারের ভালোবাসা প্রমাণ করার প্রয়োজন পড়ে না তখন।

348. তারা আসলে কিছুই পায় না যারা মন থেকে কাজ করে না আর পেলেও সেটা হয় অর্ধেক হৃদয়ের সফলতা।

349. একজন ব্যক্তির পৃথিবী তার হৃদয়ের মতোই বিশাল।

350. প্রেমী সবচেয়ে শক্তিশালী সমস্ত আবেগের মধ্যে কারণ এটি একই সাথে হৃদয় মস্তিষ্ক এবং ইন্দ্রিয়কে আঘাত করে।

351. যে নারীকে ঘুমন্ত অবস্থাতেও সুন্দর দেখায় সেই প্রকৃত রূপবতী।

352. কোন কিছুই পরিকল্পনা মত হয় না যুদ্ধ এবং প্রেমে।

353. সবাইকে সব সময় সত্য কথা বলা উচিত। কারণ এটা মানুষের বিবেককে উন্নত করে।

354. এই পৃথিবীতে অনেক মানুষই আছে যারা তাদের থেকে ভিন্ন রকমের ভিন্ন ধরনের ব্যক্তি কে পছন্দ করে।

355. ভালোবাসার অত্যাচার হচ্ছে সবচেয়ে ভয়ানক অত্যাচার পৃথিবীতে তো অনেক রকমের অত্যাচার ই রয়েছে।

356. শুদ্ধতম ভালোবাসার প্রতীক হচ্ছে অপেক্ষা।

357. কাউকে যখন পছন্দ হবে ভালোবাসবেন তখন নিজেকে তুলছে এবং সামান্য মনে হবে।

358. কঠিন সময় আপনার জীবনকে ধ্বংস করার জন্য আসে না বরং সেটা আসে আপনার ভেতর থেকে লুকায়িত সম্ভাবনাকে এবং শক্তি বুঝতে উন্মোচিত করতে।

359. কঠিন সবাইকে জানতে দিন যে আপনি তার থেকেও কঠিন।

360. মেয়েরা হচ্ছে মাতৃ জাতি। মেয়েদের সর্বদাই সম্মান করা উচিত।।

361. বাঘ যদি না খেয়েও মরে তবুও কুকুরের মত উচ্ছিষ্ট মুখে তোলে না।

362. অকৃতজ্ঞ মানুষের চেয়ে কৃতজ্ঞ কুকুর ভালো।

363. সেই ব্যক্তি কখনো কল্যাণের মুখ দেখবে না যে ব্যক্তি মন্দ লোকের সঙ্গে উঠাবসা করে।

364. যারা প্রতাপশালী হয় তাদের সবাই ভয় পাই কিন্তু শ্রদ্ধা করেনা।

365. যে মিথ্যা বললে মানুষের মঙ্গল হয় সেই মিথ্যা যদি অসৎ উদ্দেশ্য করা হয় তাও সত্য অপেক্ষা শ্রেষ্ঠতর।

366. হিংস্র বাঘের উপর কখনো দয়া করতে নেই।

367. আগুন ত্বকের কোন বন্ধু নেই আরেকজন আগন্তক ছাড়া।

368. সৎ ব্যক্তি যারা তাদের নিন্দা ও কোন অনিষ্ট করতে পারে না।

369. চরম দায়িত্বহীনতা হলো অযোগ্য ব্যক্তিকে দায়িত্ব দেয়া।

370. যে সত্যের উপাসক সেই প্রকৃত ভদ্র।

371. শুধুমাত্র ঈশ্বরের সামনেই মাথা নত কর তাহলেই ঈশ্বর তোমাকে অন্য কারো সামনে মাথা নত করতে দেবেনা

372. সৎসঙ্গ করা উচিত কারণ স্বর্ণকারের অব্যবহিত জিনিস বাদামের চেয়েও দামি।

373. যারা আপনার সঠিক কথার ও অপব্যাখ্যা বের করে তাদের ব্যাখ্যা দিয়ে আপনার মূল্যবান সময় নষ্ট করবেন না।

374. নিজের উপর সবসময় বিশ্বাস ও আস্থা রাখা উচিত কারণ সবাই বেইমানি করলেও নিজে কখনো বেইমানি করে না।

375. নিঃশ্বাস মানুষকে বাঁচিয়ে রাখে। আর বিশ্বাস বাঁচিয়ে রাখে সম্পর্ককে।

376. আলস্য জীবনকে কঠিন করে আর পরিশ্রম জীবনকে সহজ করে।

377. কষ্ট মানুষের চোখের জল ঝরালেও কষ্টই মানুষকে উঠে দাঁড়াতে সাহায্য করে।।

378. দুপুরের দাম হাজার টাকা হলেও কিন্তু তার স্থান পায়। টিপ এর দাম এক টাকা হলেও তার স্থান কপালে।

379. ইতিহাস সাক্ষী আছে মনে কখনো পোকা ধরে নি। কিন্তু প্রতি দিদি টিপটা ধরে মিষ্টিতে।

380. শুধু পাশ করলেই শিক্ষিত হওয়া যায় না শিক্ষিত হতে হলে জ্ঞান অর্জন করতে হবে।

381. যারা দুষ্টু প্রকৃতির লোক হয় তারা সব সময় মিষ্টি কথা দিয়ে মানুষকে ভুলিয়ে রাখে।

382. এই পৃথিবীতে কাউকেই চোখ বুজে বিশ্বাস করা উচিত নয়। কারণ তার মনের মধ্যে কি আছে সেটা কেউ বলতে পারে না।

383. তুমি যদি কখনো কারো মনে আঘাত করো তাহলে তৈরি থেকো তোমারও একদিন সেই দিন আসবে।

384. ভালোবাসার চেয়ে পবিত্র জিনিস পৃথিবীতে আর কি আছে।

385. অতিরিক্ত মায়া ভালো নয়। কারণ যাদের মনে অতিরিক্ত নায়েক তাদের জীবনে দুঃখ বেশি।

386. পৃথিবীতে যখন যা ঘটে তা মেনে নেয়ায় উত্তম নইলে কষ্ট পেতে হয়।

387. যারা মন থেকে কাউকে ভালোবাসে তারাই দিনশেষে পাগল হয়ে যায়।  প্রিয় মানুষটার জন্য

388. সময়ের মূল্য দিতে শেখো কেননা সময় একবার চলে গেলে সেটা আর ফিরে আসবেনা।

389. অতিরিক্ত কোন জিনিসই ভালো নয়। সে ভালোবাসা হোক বা অন্য কোন জিনিস।

390. জীবনে বাঁচতে গেলে সুখ দুঃখ সব কিছুকেই বরণ করে নিতে হয়।।

391. সুস্থ থাকতে হলে স্বাস্থ্যসম্মত খাবার খেতে হবে। এবং সকালে উঠে ব্যায়াম করতে হবে।

392. নুন এবং চিনি দেখতে একই রকম কিন্তু স্বাদে পার্থক্য রয়েছে। ঠিক তেমনি একই রকম দেখতে হলেই সব সময় এক হয় না।

393. মানুষের অমানুষ দেখতে এক হল তাদের পার্থক্য আচরণ এ 

394. সম্মানিত তারাই হয় যাদের টাকা আছে।

395. এখনো মানুষ মানুষের মন দেখে নয় সুন্দর হোক গঠন দেখে ভালোবাসা এবং বিচার করে।

396. চোখ আর কপালের সম্পর্ক অদ্ভুত কারণ যে আমাদের কপালে থাকে না চোখ তাকেই পছন্দ করে।

397. যারা তোমার বিরুদ্ধে কথা বলে তোমার পিছনে তাদের অবস্থান ওইটাই তারা সব সময় তোমার পেছনেই পড়ে থাকবে

398. বন্ধুত্ব সব সময় মনের গভীর থেকে তৈরি হয় আর ভালোবাসা তৈরি হয় ভালো লাগা থেকে।

399. অন্যকে উপদেশ দেয়া সহজ কিন্তু সেই উপদেশ মত কাজ করা কঠিন।

400. অল্পতেই যে মানুষটি খুশি হতে পারে সেই মানুষটি অল্প আঘাতেও ভেঙে যেতে পারে।

401. ভবিষ্যৎ হল মানুষের আজকের নির্ণয় এবং কর্মের পরিণাম।

402. ভবিষ্যৎ প্রতিদিন প্রতিক্ষণের নির্মাণ হয়।

403. আপনি যদি আজ কোন নির্ণয় করে সন্তোষ বোধ করেন তবে বিশ্বাস রাখুন ভবিষ্যতে অবশ্যই তার থেকে সুখ লাভ হবে।

404. আপনি জীবনে শান্তি খুঁজে পেতে চান তাহলে লোভ হিংসা ক্রোধ দূর করুন।

405. করুনায় আসল ধর্মের আধার।

406. প্রেম এবং মোহ এর মধ্যে পার্থক্য হল প্রেম হল করুণা আর মোহ হল অহংকার।

407. বাস্তবে যেখানে প্রেম থাকে সেখানে মোহ থাকে না। প্রেমের জন্ম করুণা থেকে হয়। আর মুখে জন্ম অহংকার থেকে।

408. সন্তানের ভবিষ্যৎ নির্মাণের থেকেও তার চরিত্র নির্মাণ করার শ্রেয়।

409. সন্তানের ভবিষ্যতের পথ নির্ধারণ করার বদলে তাদের নতুন নতুন সংঘর্ষের সাথে পরিচয় করিয়ে দিয়ে মনোবল আর জ্ঞান বাড়ানোই আসল কর্তব্য।

410. যখন কোন ব্যক্তি কোন ঘটনার মধ্যে অন্যায়কে দেখতে পাই তখন সেই ঘটনা তার হৃদয়কে তছনছ করে দেয়। সমস্ত জগতকে সে নিজের শত্রুরূপে জ্ঞান করতে থাকে। অন্যায় বলে মনে হওয়া সেই ঘটনা যত বিরাট হয় মানুষের হৃদয়ে কিন্তু ততই বিরোধিতা করতে থাকে। সেই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে সে নেই দাবি করে।

411.

412. যে ব্যক্তি সতর্কতা অবলম্বন করে না নিজের তাকে দেহরক্ষীও বাঁচাতে পারে না।

413. এই দুনিয়ার প্রতি অত্যাধিক আকর্ষণে সকল দুঃখের মূল

414. জগৎকে দান করো তোমার যা ইচ্ছা বিনিময়ে তুমিও ভালো জিনিস লাভ করবে জগৎ থেকে।

415. যারা অসৎ তারা কাউকে সৎ মনে করে না তারা নিজের মতোভাবে সকলকেই।

416. যে ব্যক্তি নিজেই নিজের মর্যাদা বোঝেনা তাকে কেউ মর্যাদা দেয় না।

417. যে ব্যক্তির চরিত্র সত্য ও সুন্দর সেই ব্যক্তির কথাবার্তা নম্র ও ভদ্র হয়।

418. সকল বদঅভ্যাসের সম্মিলিত রূপ হচ্ছে কৃপণতা।

419. পৃথিবীর সবচেয়ে বড় সম্পদ হচ্ছে স্বাস্থ্য এবং সবচেয়ে বড় সুখ হচ্ছে অল্পতে তুষ্ট থাকা।

420. পৃথিবীতে যত কলহ আছে

 তার মধ্যে সবচেয়ে বেশি কলহের কারণ হচ্ছে ধন-সম্পদের লোভ।

421. শত্রু শত্রু বন্ধু হয় এবং বন্ধুর শত্রু শত্রু হয়।

422. সূত্র যখন কৌশলে শত্রুতা করতে ব্যর্থ হয় তখন তারা বন্ধুত্বের সুরথ ধরে।

423. সুবিচারে রাজ্য স্থায়ী হয়।

424. রাজ্যের পতন তখনই শুরু হয় যখন রাজ্য থেকে সুবিচার উঠে যায়।

425. যে ব্যক্তি সুবিচারক তার কোন বন্ধুর দরকার হয় না।

426. বড়দের সম্মান করা শেখো তাহলে ছোটদের কাছ থেকেও সম্মান পাবে।

427. সম্মান ব্যক্তিকে অপমান করলে যে দোষ হয় হীন ব্যক্তিকে সম্মান করলেও একই প্রকারের দোষে দোষী হয় মানুষ।

428. যারা বুদ্ধিমান হয় তারা প্রথমে অন্তর দিয়ে কোন কিছু অনুভব করে তারপর সেই সম্পর্কে মন্তব্য করে।

429. আর যারা নির্বোধ হয় তারা প্রথমে মন্তব্য করে তারপর চিন্তা করে।

430. যেটা সত্য নয় সেটা কখনোই বলবে না কারণ যদি তুমি মিথ্যা কথা বলো তাহলে তোমার সত্য কথা কেউ লোকে অসত্য বলে মনে করবে।

431. যারা বুদ্ধিমান ও সত্যবাদী তাদের সঙ্গেই মেশো অন্য কারো সঙ্গ কামনা করোনা।

432. ঈশ্বর যেটা করবে তোমার মঙ্গলের জন্যই করবে।।

433. সর্বদা সৃষ্টিকর্তার ওপর বিশ্বাস রাখা উচিত। কারণ তিনি আমাদের সৃষ্টি করেছেন তিনি আমাদের রক্ষা করবেন।

434. পড় তোমার প্রভুর নামে যিনি তোমাকে এই পৃথিবীতে সুন্দর ভাবে সৃষ্টি করেছেন।

435. ভেবেচিন্তে সকল কাজ শুরু করা উচিত।

436. সকালে খালি পেটে ঠান্ডা পানি পান করা ভালো এতে স্বাস্থ্য ভালো থাকে।

437. পেলা পর্যন্ত না ঘুমিয়ে ভরে উঠে প্রাত ভ্রমণে যান। কারণ ভোরের হাওয়া রোদ গায়ে লাগানো স্বাস্থ্যের জন্য ভালো।

438. নিজের উপরে বিশ্বাস রাখ অন্য কারোর উপরে নয়।

439. জীবনে কঠিন পরিস্থিতিতে ধৈর্য ধারণ করা অবশ্যই উচিত। কারণ ধৈর্যই একমাত্র শক্তি যেটা কঠিন পরিস্থিতিকে মোকাবেলা করতে সাহায্য করে।

440. অন্ধ ভালবাসার গন্ধ বেশি হয়। আর যে ভালোবাসা নকল সেই ভালোবাসার সুবাস বেশি।

441. পৃথিবীতে সব কিছু আছে কিন্তু একটা জিনিসই নেই সেটা হচ্ছে সন্তুষ্টি।

442. আজকের মানুষের সবকিছু আছে নেই শুধু ধৈর্য।

443. সুখ কিনতে পারা যায় না দুঃখ কেউ বিক্রি করা যায় না তবুও মানুষ রোজগার করতে চলে যায়। কারণ কর্মই ধর্ম।

444. যে সময় চলে যাই সেই সময় কখনো ফিরে আসে না। আমরা অনেক সময় ভাবি যে যে কাজটা আর হচ্ছে না সে কাজটা হয়তো কাল হবে এটা ভেবে ভেবে আমাদের মূল্যবান সময় নষ্ট করি। কিন্তু বাস্তবে সেটা কখনোই আর হয় না।

445. ঝিনাকে কখনোই ঘৃণা দিয়ে শেষ করা যায় না একমাত্র ভালবাসার দ্বারাই জিনাকে শেষ করা যেতে পারে আর এটাই প্রকৃত সত্য।

446. ভবিষ্যতের স্বপ্নে হারিয়ে যাওয়া উচিত নয় আর অতীতকে নিয়েও বিভ্রান্ত হওয়া উচিত নয় বর্তমানে দিকে মনোযোগ দেয়া সর্বদাই উচিত। এটাই সুখী হওয়ার উপায়।

447. একটি মোমবাতি দিয়েও কিন্তু হাজারটা মোমবাতি চালানো যায়, ঠিক তেমনি সুখ যদি ভাগ করে নেয়া যায় তাহলেও সুখ কমে না বরং বেড়ে যায়।

448. চিন্তায় মানুষের প্রধান শক্তির উৎস। খারাপ চিন্তা তোমাকে অনেক বেশি আঘাত করে যা তোমার ধারণাও নেই

449. মনকে সবসময় ভালো কাজে নিমগ্ন রাখো দেখবে জীবনে সুখী হবে

450. কোন কাজকে ছোট মনে করোনা, ছোট কাজ করতে করতে একসময় বড় কাজের সন্ধান পাবে।

451. নারীরা পুরুষের কাছ থেকে সুবিধা পায়না বলেই সব সময় পিছে পড়ে থাকে।

452. যদি নারীরা  জাগ্রত না হয়। তাহলে দেশমাতৃকার মুক্তি অসম্ভব।

453. দেহের দুটি চক্ষুর মতো মানুষের সকল রকমের কাজকর্মের প্রয়োজনেই দুটি চোখের গুরুত্ব সমান।

454. সকল নর নারীর কর্তব্য হচ্ছে শিক্ষালাপ করা কিন্তু আমাদের সমাজ সর্বদায় তা অমান্য করে।

455. মেয়েদের এমন শিক্ষায় শিক্ষিত করে তুলতে হবে যাতে তারা ভবিষ্যৎ জীবনে আদর্শ গৃহিণী এবং আদর্শ জননী ও আদর্শ নারী রূপে পরিচিত হতে পারে।

456. অন্তিম কালে কি হয় সেটা তো আমরা কেউই জানিনা। তাই যতক্ষণ বেঁচে আছি ততক্ষণ ভালো কর্ম করে যাওয়া উচিত।

457. গুরুর প্রতি নিষ্ঠা যার সকল কর্মে সাধন ও সিদ্ধ হয় তার।

458. গুরু নিন্দা করা মহাপাপ।

459. অন্যের নিন্দা এবং অন্যের সমালোচনা করা উচিত নয়।

460. মানুষ ভজলে সোনার মানুষ হবি।

461. অতৃপ্তি নিয়ে বিরাট অট্টালিকায় থাকার চেয়ে পরিপূর্ণ তৃপ্তি নিয়ে কুঁড়ে ঘরে থাকা শ্রেয়।

462. যে ব্যক্তি নিজেকে দমন করতে পারে না সে ব্যক্তি নিজের জন্য বিপদজনক এবং অন্যের জন্য ও 

463. যারা সাহসী তারা মৃত্যুর স্বাদ একবারই গ্রহণ করে আর ভীরু রা মরার আগে বারবার মরে।

464. নারী যদি ফাঁসিও হয় ফাঁসিতে যাওয়ার আগেও সে তার মেকআপ ঠিক করার জন্য সময় চাইবে।

465. অপরকে বুঝতে দিও না যদি তুমি অপমানিত বোধ করো।

466. দুঃখই হল প্রাপ্তি আর প্রত্যাশার পার্থক্য।

467. প্রত্যাশা কপালে দুঃখও কমে যায়।

468. সৎ লোকের অনুসন্ধান করো, নইলে নিজে সৎ হও।

469. অন্যের থেকে জানুন বেশি বেশি

470. অন্যের থেকে বেশি কাজ করার চেষ্টা করুন।

471. আসা কম রাখুন অন্যের থেকে।

472. একাকী আলোতে হাটা র থেকেও প্রকৃত বন্ধুকে নিয়ে অন্ধকারেও হাটা ভালো।

473. বিজ্ঞানকে যে অল্প জানবে সে হবে নাস্তিক আর যে প্রকৃত সম্পূর্ণ রকম ভাবে জানবে সে হবে ঈশ্বরের বিশ্বাসী।

474. যদি আমার কোন দোষ হয় তাহলে আমাকেই বলে দিও।

475. মানুষের সর্বোচ্চ সাফল্য হচ্ছে সাধ্যমত করতে পারায় সবটুকু করতে পারায় নয়।

476. অর্থ ছাড়া ভালোবাসা প্রত্যাশা করা দুর্লভ।

477. সত্যকে সর্বদাই ভালোবাসা উচিত এবং ভুলকে ক্ষমা করা।

478. সে কখনোই মাথা খোঁয়ায় না যে মাথা নোয়াতে জানে।

479. শিক্ষার ফল মিষ্টি যদিও শিকড়ের স্বাদ তেতো।

480. মানুষের ব্যবহারেই মানুষের আসল সম্মান বয়ে আনে।

481. ভুলভাল কথা বলার থেকে চুপ করে থাকা ভালো।

482. যে ভালবাসা অল্পতেই পাওয়া যায় সে ভালোবাসার পথে কোন টান বা মোহ থাকে না।

483. হ্যাঁ বা না কথাটা ছোট হলেও এই কথা দুটো বলতে সবচেয়ে বেশি ভাবতে হয়।

484. সবচেয়ে বড় শিক্ষা কি জানো আমি জানিনা বলতে পারায়।

485. অসুখী তো সেই ব্যক্তি যে মন খুলে হাসতে পারেনা।

486. মৃত্যুই হচ্ছে জীবনের ঘনিষ্ঠ সঙ্গী।।

487. সহজ সরল মানুষ যারা যারা সহজ সরল ভাবে জীবন যাপন করে তাদের জন্য অত্যন্ত সুলভ্য হচ্ছে সুখ।

488. মুখ দিয়ে বল কম চিন্তা কর বেশি লেখ তার থেকেও কম।

489. অসৎ ভাবে আনন্দ লাভ করার চেয়ে পবিত্র বেদনা ও শ্রেয়।

490. মহৎ ব্যক্তিদের বাণী এবং আত্মজীবনী সর্বোৎকৃষ্ট শিক্ষক মানুষের।

491. দুঃখজনক পরিণতি ডেকে আনে সেই সম্পদ যে সম্পদ বিনাশ্রমে অর্জিত হয়

492. প্রকৃত বন্ধু যাদের নেই দুর্ভাগ্যবান তো তারাই।

493. জীবনে কিছু কিছু ভুল থাকে যা হাজারটা ভুল থেকে বাঁচায় ভবিষ্যতে।

494. যে ব্যক্তি সবার সাথে তাল মিলিয়ে কথা বলে সে ব্যক্তি ব্যক্তিত্বহীন।

495. ধর্ম নিয়ে যারা বাড়াবাড়ি করে তারা ধর্মের মূল্যই জানে না।

496. ধর্ম সম্পর্কে তাদের জ্ঞান নেই যারা ধর্ম নিয়ে অতিরিক্ত বাড়াবাড়ি করে।

497. যখন যেটাকে দেখবে সেটা কি মূল্য দিও কারণ কখন কিসের ভিতর কে লুকিয়ে থাকে সেটা বলা যায় না।

498. যে অন্যের ভুল অন্যের ত্রুটি নিজেকে দিয়ে বিচার করে সেই প্রকৃত জ্ঞানী।

499. প্রয়োজনের তুলনায় বেশি আসা করা উচিত নয়।

500. কান্না হচ্ছে এমন একটি ভাষা যে ভাষা মহৎ।

501. জীভ যতই তিন ইঞ্চি লম্বা হোক না কেন একজন ৭ ফিট মানুষকেও ধরাশায়ী করে দিতে পারে।

502. বন্ধু হচ্ছে এক আত্মার দুইটি শরীর।

503. বিয়ে করার অর্থ হচ্ছে কর্তব্য কে দ্বিগুণ করা  অর্ধেক করে দেয়া নিজের অধিকার কে।

504. বাবা হচ্ছে বটের ছায়া। যে রোদে নিজে তাপ সহ্য করে অন্যকে ছায়া প্রদান করে।

505. সংসারে শান্তি আনার নিয়ম দুঃখ কিন্দা এবং ভয়কে হাসিমুখে বরণ করে দেওয়া।

506. মানুষকে মহৎ করে তোলে অর্থ। আমার এই অর্থই সকল অনর্থের মূল।

507. ক্ষ্যান্ত হও ঝগড়া-চরমে পৌঁছার আগেই।

508. পরিশ্রমী ব্যক্তিরা কখনো অন্যের সহানুভূতির প্রত্যাশা করে না।

509. আজ জীবনের শেষ দিন এটা ভেবে প্রত্যেক আমাদের জীবন কাটানো উচিত।

510. সবচেয়ে বড় উপহার হচ্ছে সৎ পরামর্শ।

511. কান্নার মধ্যেও আনন্দ লুকিয়ে আছে এই জন্য মানুষ কান্না করে।

512. জীবনকে দূরবীসহ করে তোলে হচ্ছে অবিশ্বাস এবং সন্দেহ।

513. অলস মানুষে খারাপ মানুষ হয় স্বভাবগতভাবেই।

514. পরিশ্রম ছাড়া কখনোই সাফল্য ধরা দেয় না।

515. বিশ্বাস হচ্ছে এমন একটি জিনিস যা ভেঙে গেলে কখনো জোড়া লাগে না।

516. পিঁপড়ের গর্ত হলে এক ফোঁটা শিশিরে ও বন্যা হয়ে যেতে পারে।

517. সৎ মানুষকে কেউ কখনো অনিষ্ট করতে পারে না। নিন্দা ও তার কোন ক্ষতি করতে পারে না।

518. শ্রম ছাড়া সম্পদ সৌন্দর্য কিছুই হয় না।

519. টিভি বুড়ো হতে চায় না সবাই অনেকদিন বাঁচতে চায়।

520. মানুষের দুঃখ মানুষ মূলত নিজেই তৈরি করে।

আশা করি আজকের এই আর্টিকেল আপনাদের ভালো লেগেছে। রবীন্দ্রনাথের বাণী সমগ্র আপনাদের কাজে আসবে। এমন আরো নানা উক্তি, বাণী এবং স্ট্যাটাস পেতে আমাদের ওয়েবসাইটের সাথেই থাকুন। ধন্যবা

বাস্তব জীবন নিয়ে স্ট্যাটাস 

Leave a Comment